Xossip

Go Back Xossip > Mirchi> Stories> Regional> Bengali > নিষিদ্ধ দ্বীপে অজাচার

Reply Free Video Chat with Indian Girls
 
Thread Tools Search this Thread
  #1  
Old 2 Weeks Ago
fer_prog fer_prog is online now
sex must be done with love
  Annual Masala Awards: Thread of the Year      
Join Date: 25th August 2009
Location: Dhaka, Bangladesh
Posts: 1,668
Rep Power: 27 Points: 8426
fer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autograph
UL: 576.22 mb DL: 1.19 gb Ratio: 0.47
নিষিদ্ধ দ্বীপে অজাচার

1974 সালে George C. Scott নামে একজন বিখ্যাত পরিচালক একটি ছবি বানিয়েছিলেন, ছবিতির নাম ছিলো “The Savage is Loose”। এর মুল কাহিনি হচ্ছে একটি ছেলে ও তার বাবা মা, জাহাজ ডুবিতে পড়ে একটা অজানা নির্জন দ্বীপে আশ্রয় পায়, সেখানে সভ্যতার থেকে দূরে ওরা নিজেদের জীবনকে কিভাবে পরিচালিত করে, সেটাই ছিলো ওই মুভির সারমর্ম। আমার এই গল্পটি ও সেই মুভির ভাবধারাকে ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে, আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে। এই পুরো গল্পে যৌনতার দৃশ্য খুব কম, আর থাকলে ও সেটাতে অশ্লীল শব্দরাজির ব্যবহার খুব কম, তাই অনেক পাঠকই হয়ত গল্পটিতে পড়ে মজা নাও পেতে পারেন। এই গল্পে Incest+Cuckolding আছে, তাই যাদের এই দুটি বিষয়ে আল্যারজি আছে, তাদেরকে দূরে থাকতেই বলবো আমি।

Reply With Quote
  #2  
Old 2 Weeks Ago
fer_prog fer_prog is online now
sex must be done with love
  Annual Masala Awards: Thread of the Year      
Join Date: 25th August 2009
Location: Dhaka, Bangladesh
Posts: 1,668
Rep Power: 27 Points: 8426
fer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autograph
UL: 576.22 mb DL: 1.19 gb Ratio: 0.47
ভুমিকাঃ

এই গল্পটি আপনাদেরকে ১০০ বছর পিছনে গিয়ে পড়তে হবে, ১৯ শতকের প্রথম দিকের কথা বলছি, যখন এই পৃথিবীতে যোগাযোগ ব্যবস্থা আজকের মত এতো আধুনিক ছিলো না, ছেলে মেয়েরা ও এতো আধুনিক ছিলো না। গল্পের নায়ক একজন ব্যবসায়ী, উনার নাম বাকের, উনার ঘরে একজন সুন্দরী স্ত্রী আছে যার নাম সাবিহা, আর ওদের একমাত্র ছেলে যার নাম আহসান। বাকের সাহেবের বয়স এখন ৫১ ছুই ছুই, সাবিহার বয়স ৩২, বিয়ে করেছিলেন একটু দেরিতে, কিন্তু মেয়ে ছিলো অল্প বয়সী। বিয়ের সময় সাবিহার বয়স ছিলো ১৮ আর বাকেরের ৩৭, প্রায় দিগুন বয়স। মা হতে দেরি করে নাই সাবিহা। আহসান চলে এলো ওর কোলে। বিয়ের পর থেকে বাকেরের জীবনের ভাগ্য লক্ষ্মী যেন দূরে সড়ে যেতে লাগলো একটু একটু করে। একের পর এক ব্যবসায় লস হতে হতে, এক ব্যবসা ছেড়ে অন্য ব্যবসা, আবার লস, আবার ব্যবসা পরিবর্তন, এভাবেই চলছিলো বাকের আর সাবিহার জীবন। অসম্ভব রকম দৃঢ় মনোবলের মানুষ বাকের, শরীরে ও অনেক শক্তি ধরে, মনের জোর ও তুলনাহীন, সাথে জেদ ও ভীষণ। কোনদিন সাবিহাকে বকা বা গালাগালি দিতো না সে, ওর আচার আচরনে ভালবাসার প্রকাশ অতটা প্রকট না হলে ও সাবিহা জানে, যে ওর কোন প্রকার অসুবিধা সইতে পারে না বাকের। একটা মুখে না বলা ভালোবাসার টান ওদের মধ্যে ঠিকই ছিলো। সাবিহা ছিলো উচ্চ বংশের ভদ্র সচ্ছল ঘরের সন্তান, সুন্দরী, ভদ্র, অমায়িক আর আদরের সন্তান, জীবনে কোনদিন অভাব চোখে দেখে নাই। বাকেরের সংসারে এসে ওকে হাড় ভাঙ্গা খাটুনীর সাথে সাথে টাকা পয়সার টানাটানি ও সয়ে নিতে হচ্ছে। শেষ ব্যবসায় ধরা খাবার পর বাকের স্থির করলো যে, এই দেশে ওর পক্ষে ব্যবসা করা সম্ভব না। ওকে এই দেশ ছেড়ে অন্য দেশে গিয়ে ব্যবসা করতে হবে। তাই সে অস্ট্রেলিয়া যাবার চিন্তা করলো, ওখানে কিছু লোক আছে যারা ওকে আশা দিলো যে ওকে, ওদেশে ব্যবসা দাড় করিয়ে দিতে সাহায্য করবে। কিন্তু সেই সময়ের এক দেশ থেকে অন্য দেশে পাড়ি জমানো আজকের দিনের মত সহজ ছিলো না, সমুদ্র পথেই প্রায় ৪ মাসের পথ অস্ট্রেলিয়া। আর সমুদ্র যাত্রা অনেক ভয়ঙ্কর, কখন যে কোন বিপদ চলে আসে, সেটার কোন আন্দাজ করা সম্ভব নয়। পুরোটাই অনিশ্চিত যাত্রা, সমুদ্র পথে। সাবিহার পরিবার অনেক বুঝালো বাকেরকে, কিন্তু আগেই বলেছি, অসম্ভব রকম জেদি এই লোকটা, ওর নিজের কথা থেকে ওকে কেউ সড়াতে পারবে না ও নিজে ছাড়া। বড় বড় ব্যবসায়ী, সাহসি লোক ছাড়া কেউ এই রকম দূর সমদ্রযাত্রা করতে পারতো না ওই সব দিনে। বিপদ নানা দিক থেকে আসতে পারে, আর আজকের দিনের মত রেডিও যোগাযোগ ও সম্ভব ছিলো না, মাঝ সমুদ্রে, বিশেষ করে প্রশান্ত মহাসগরের ঢুকে গেলে পুরো যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। কখন ঝড় আসে, কখন সমুদ্র ফুলে উঠে, কখন দিক বিভ্রান্ত হয়ে যায়, তার কোন পুরবাভাস পাওয়ার কোন সুযোগ নেই।

Reply With Quote
  #3  
Old 2 Weeks Ago
fer_prog fer_prog is online now
sex must be done with love
  Annual Masala Awards: Thread of the Year      
Join Date: 25th August 2009
Location: Dhaka, Bangladesh
Posts: 1,668
Rep Power: 27 Points: 8426
fer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autograph
UL: 576.22 mb DL: 1.19 gb Ratio: 0.47
সমুদ্র যাত্রা, ঝড়, ও নির্জন দ্বীপে আশ্রয় নে


সমুদ্র যাত্রা, ঝড়, ও নির্জন দ্বীপে আশ্রয় নেয়া

চোখের জ্বলে আত্মীয়স্বজনকে বিদায় জানিয়ে সাবিহা, ওর স্বামী আর ছেলেকে নিয়ে যেই জাহাজে উঠলো, সেটা বেশ বড় জাহাজই ছিলো, প্রথম মাস খানেক ওদের ভালই কাটলো জাহাজে, পথে একবার ম্যানিলা থামলো, একবার ইন্দোনেশিয়াতে থামলো জাহাজ। ইন্দোনেশিয়া থেকে যেদিন ওরা প্রশান্ত মহাসাগর পাড়ি দেবার জন্যে রওনা দিলো, সেটাও বেশ রৌদ্রউজ্জ্বল দিন ছিলো। প্রশান্ত মহাসগরে ঢুকার পরে আর একটি সপ্তাহ চলে গেলো কোন রকম অঘটন ছাড়াই। এর পর দিন রাতে ওরা এক বিশাল টাইফুন ঝড়ের মুখে পড়ে গেলো। বাকের, সাবিহা আর ওদের কিশোর ছেলে রাতের খাবার খেয়ে বিছানায় শোবার পোশাক পাল্টে বিছানায় উঠতে যাওয়ার পরই, ঝড় শুরু হলো। এতো বড় জাহাজকে যেন খর কুটোর মত আছড়ে আছড়ে ভেঙ্গে ফেলতে চেষ্টা করলো সেই ঝড়, ওরা সবাই যেন তুলোর মত উড়ে যেতে লাগলো এদিক সেদিক, যখন জাহাজ ডুবতে শুরু করলো, তখন বাকের ওর স্ত্রীকে নিয়ে লাইফবোট খুঁজতে লাগলো আর ভাগ্য ভালো থাকার কারনে একটা পেয়ে ও গেলো। ওরা তিনজনে লাইফ বোটে উঠতে না উঠতেই আরেকটা বড় ঢেউ এসে ওদেরকে জাহাজ থেকে অনেক দূরে নিয়ে গেলো, দূর থেকেই ওরা জাহাজকে ঝড়ের আঘাতে খণ্ড বিখণ্ড হয়ে যেতে দেখলো। এদিকে ঝড়ের তখন সবে মাত্র শুরু, ওদের ক্ষুদ্র লাইফবোটকে প্রশান্ত মহাসাগরের টাইফুনের ঢেউ একবার যেন আকাশে তুলে ফেলে আবার এক ধাক্কায় যেন পানির নিচে তলিয়ে দেয়, নিজেদের শরীরকে দড়ির সাহায্যে লাইফবোটের সাথে বেঁধে ফেলেছিলো ওরা সবাই, তাই লাইফবোটের যা হবে, ওদের ও তাই হবে। ওদের পড়নে কাপড় বলতে রাত্রে শোওয়ার পোশাক যেটা ভিজে যাওয়ার কারনে শরীর ঢেকে রাখার কাজ না করে বরং আরও প্রকাশিত করে দিচ্ছে। সাড়া রাত্রি ঝড় চললো, আর সকালে যখন ঝড় থামলো তখন লাইফবোটেরর তলা কিছু অংশ খুলে গেছে, শুধু চার কিনারটা কোন রকমের ওদের শরীরকে আধা পানির নিচে আধা পানির উপরে ধরে রেখেছে।
লাইফবোটের ভিতরে থাকা সামান্য কিছু জিনিষ এখন ও আছে, দেখে বাকের বোটের ভিতর থেকে পানি সেচে ফেলার কাজ শুরু করলো, কিন্তু সাবিহা ওকে বাধা দিলো, যেখানে বোটের তলা অর্ধেক খুলে গেছে, সেখানে পানি সেচে কি কমানো সম্ভব? সকালে সমুদ্র এখন শান্ত, মৃদুমন্দ হাওয়া বইছে, কিন্তু ওদের মনে আর শরীরে এক ফোঁটা শক্তি ও আর অবশিষ্ট রেখে যায় নি কাল রাতের সর্বনাশা ঝড়। বাকের আর সাবিহার অবস্থা তো খারাপই, কিন্তু বেশি খারাপ হচ্ছে আহসানের অবস্থা। ওর চোখ দুটি ভয়ে কাঁপছে, সমুদ্রের ঠাণ্ডা পানিতে শরীর কাঁপছে, “মা, আমরা কি মারা যাবো এখন?”-ওর মুখ দিয়ে প্রথম কথা এটাই বের হলো কাল রাতের পর।
সাবিহা ছেলের মাথায় হাত রেখে সান্তনা দিলো, “কিছু হবে না বাবা...আশেপাশ দিয়ে অনেক জাহাজ যাবে এখানে, ওরা আমাদের কে খুঁজতে বের হবে, খুব শীঘ্রই আমরা উদ্ধার পেয়ে যাবো...”-যদি ও জানে এটা শুধু বলার জন্যেই বলা, ওদের ভাগ্যে যে সামনে কি আছে, সেটা নিশ্চিত করে বলা, এখন আর কারো পক্ষে সম্ভব না।
আসলে ঝড়ের কারনে ওরা মুল জাহাজের পথ থেকে, যেখান দিয়ে জাহাজ চলাচল করে সাধারণত, সেখান থেকে প্রায় ১৫০ কিমি দূরে সড়ে এসেছে, যেখান থেকে ওদেরকে খুঁজে বের করা সত্যিই অসম্ভব, অবশ্য যদি কেউ খোঁজ করে থাকে আদোই। তাই আশাহত মনে আশার সঞ্চারর জন্যেই সাবিহা এই কথাটা ছেলেকে বললো, কিন্তু ওদের একমাত্র অবলম্বন বোটটা ও যে ডুবে যেতে বসেছে, এটাকে বাচাতে হলে এটাকে ছেড়ে সমুদ্রে নেমে যেতে হবে ওদেরকে এখনই। ওদের বিপদের শেষ হয়ে ও যেন হচ্ছে না। এই গভীর সমুদ্রে ওরা পানির মধ্যে কতক্ষন বোটের কিনার ধরে ভেসে থাকতে চেষ্টা করতে পারবে, ওরা জানে না, কাছাকাছি কোন দ্বীপ বা বসতি আছে কি ওরা জানে না, ওদের সঙ্গে সম্বল বলে জীবন ধারনের একটি উপকরন ও নেই, এই লাইফবোটের ভিতরে যদি কিছু থাকে, তাহলে হয়ত বেচে থাকার সংগ্রাম করা সম্ভব হবে ওদের। চারদিকে শুধু পানি আর পানি স্বচ্ছ জলরাশি ওদের জন্যে সৌন্দর্য নয় বরং যেন মৃত্যুরই নামান্তর মাত্র। বাকের চারদিকে তাকিয়ে শুধু কি যেন খুঁজছে, কিন্তু কিছুর দেখা কি পেলো? বোটটাকে বাচানোর জন্যে ওদেরকে পানিতে নেমে যেতে হলো, ওরা এখন বোটের কিনার ধরে পানিতে শরীর ডুবিয়ে ভেসে আছে। কাল রাতের মত দড়ি দিয়ে নিজেদেরকে বোটের সাথে বেঁধে রেখেছে, কিন্তু শরীরের ভার ওটার উপর দেয়া সম্ভব না।

Last edited by fer_prog : 2 Weeks Ago at 11:23 PM. Reason: new line added

Reply With Quote
  #4  
Old 2 Weeks Ago
fer_prog fer_prog is online now
sex must be done with love
  Annual Masala Awards: Thread of the Year      
Join Date: 25th August 2009
Location: Dhaka, Bangladesh
Posts: 1,668
Rep Power: 27 Points: 8426
fer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autograph
UL: 576.22 mb DL: 1.19 gb Ratio: 0.47
চোখের দৃষ্টি আহসানের কচি মুখের উপর পড়তেই বাকের বুঝতে পারলো যে আহসান ওর মায়ের দিকে তাকিয়ে আছে, ছেলের দৃষ্টি অনুসরন করে সাবিহার দিকে তাকাতেই দেখতে পেলো যে ঝড়ের তাণ্ডবের কারনে সাবিহার পড়নের উপরে কামিজের সামনের দিকে সবগুলি বোতাম ছিঁড়ে গেছে, শুতে যাওয়ার জন্যে প্রস্তুত হচ্ছিলো সাবিহা, তাই ওর পড়নের ব্রা নেই এখন, ওর উম্মুক্ত বুক দুটির উপরে ছেলের দৃষ্টি, সেটা বুঝতে পেরে একটু গলা পরিষ্কার করার মত করে শব্দ করলো বাকের, সাবিহা ওর দিকে তাকাতেই ইঙ্গিতে সাবিহার বুকের দিকে দেখিয়ে দিলো বাকের। সাবিহা এতক্ষন বুঝতে পারলো যে ওর বুকের কাছটা পুরো খুলে গেছে আর ওর বড় বড় মাই দুটি এখন পুরো উম্মুক্ত, সেদিকেই আহসান চোখের পলক না ফেলে তাকিয়ে আছে। সাবিহা ছেলের দিকে তাকাতেই আহসান লজ্জা পেয়ে মাথা ঝাঁকিয়ে চোখ অন্যদিকে ফিরিয়ে নিলো। কিন্তু হাতের কিছু নেই যে সাবিহা ওর বুকের উপর দিয়ে নিজের লজ্জা সংবরণ করবে। তাই বাধ্য হয়ে সাবিহা ওর পড়নের কামিজের নিচের অংশ মাঝমাঝি ভাজ করে নিজের বুকের দিকে উঠিয়ে নিয়ে বুক ঢাকলো। জীবনের চরম বিপদের দিনে ও নিজের লজ্জাস্থান ঢেকে রাখার শিক্ষা ভুলে যায় নি সে।
বোটের কিনার ধরে ওর ভেসে চললো পানির স্রোতের টানে, লক্ষ্যহীনভাবে, খাদ্য, পানি, কাপড় ছাড়া। দিনটা পার হতেই যেন ওদের শরীরের শক্তি একদম নিঃশেষ হয়ে যাচ্ছে। এভাবে কতদিন কাটাবে ওরা, জানে না, মনে মনে আহসান ওর আব্বুর উপর বেশ ক্ষিপ্ত হয়ে ছিলো, উনার জিদের কারনেই ওদেরকে দেশ ছেড়ে জাহাজে উঠতে হয়েছে, আর এখন ওদের এই অবস্থা। ওরা কি উদ্ধার পাবে আদোই, নাকি এভাবে ভেসে ভেসে মৃত্যুর দিকে ঢলে পড়বে। একটা মাছ শিকার করে খাওয়ার মত শক্তি ও যেন নেই ওদের কারো শরীরে, অবশ্য কোন হাতিয়ার ও নেই। সাবিহা ছিল অতন্ত ভদ্র আর বিনয়ী একজন মহিলা, খাদ্যের চেয়ে ও নিজের শরীর পুরো ঢেকে রাখার মত কাপড় ও যে নেই ওর কাছে এটাই যেন ওকে বেশি বিড়ম্বনা আর অস্থিরতা দিচ্ছিলো। রাতের আধার নেমে এলে সেই বিব্রত অবস্থা যেন কিছুটা কমে এলো, যদি ও কাল রাতের পর থেকে কারো পেটে কোন দানা পানি না পড়াতে ওদের অবস্থা আরও সঙ্গিন হয়ে পড়তে লাগলো সময়ের সাথে সাথে।
এভাবেই পরের দিনটি ও কেটে গেলো, অনেকবার ওদের মনে হয়েছে যেন, সামনে কিছু একটা দেখা যাচ্ছে, সেটা মনে হয় একটা দ্বীপ, ওদের শরীরের মনে একটা আশার সঞ্চার হয়ে যায়, কিছু পরেই সেটা মিলিয়ে যেতেই আবার নিরাশার চোরা বালি ওদেরকে ঘিরে ধরে। ঝড়ের রাতের পড়ে এভাবেই তিনটি দিন ও রাত কেটে গেলো, ওদের শরীর যেন আর পানির উপরে ও নিজের ভার ধরে রাখতে পারছিলো না। অধিকাংশ সময় চোখে বুজে নির্জীব হয়ে পড়ে ছিলো ওরা। লাইফবোটে কোন খাবার না থাকাতে ওদের জীবনী শক্তি ধীরে ধীরে নিঃশেষ হতে শুরু করেছে, ঠিক এমন সময়েই চতুর্থ দিন সকালে বাকেরের চোখে পড়লো দূরে একটা বিন্দু, সে মাথা সোজা করে ওদিকে কিছুক্ষন তাকিয়ে রইলো, আর সাবিহাকে ডাক দিলো, “দেখো ওটা মনে হয় একটা দ্বীপ, সাবিহা উঠো...”
সাবিহা চোখ মেলে স্বামীকে অনুসুরন করে দেখল একটা বিন্দু দেখা যাচ্ছে, কিন্তু ওটা কি দ্বীপ নাকি গত তিন দিনের মত কোন এক আলেয়া সেটা ঠিক বুঝে উঠতে পারছিলো না। তবু ও আশার বালিতে ঘর বেঁধে সাবিহা ডেকে তুললো আহসানকে, “বাবা, উঠ, দেখ, ওটা মনে হয় একটা দ্বীপ, জোরে জরে সাতার কাট, বাবা, আমাদেরকে ওখানে যেতে হবে...”। মায়ের মুখের কথা ছেলে কি অবিশ্বাস করতে পারে, কিন্তু শরীরে যে শক্তি নেই, তারপর ও সাবিহার কথায় ওরা তিনজনেই ঝাপিয়ে পরলো দ্রুত সাতার কেটে ওদিকে যাওয়ার জন্যে। উপরওয়ালা এই বার ওদের সাথে আর কোন দুষ্টমি না করে সত্যি সত্যি ওদেরকে একটা দ্বিপে এনে পৌছালো। বেশ কয়েক ঘণ্টা ধরে সাতরে ওরা পায়ের নিচে বালির আস্তর টের পেলো।
“আমরা পেরেছি...ওহঃ খোদাঃ...আমরা পেরেছি...”-সাবিহা বেশি খুশি ছিলো এই আশার বালি দ্বীপে পৌঁছতে পেরে, ওর ভিতরে এখন ও অনেক উচ্ছ্বাস যেন উপচে পড়ছে, যদি ও ওদের গলা শুকিয়ে কাঠ হয়ে গেছে তৃষ্ণার জলের জন্যে। সাবিহা ওর স্বামীর দিকে তাকালো, আহসানকে বেশি খুশি মনে হচ্ছে না।
“বেশি খুশি হতে পারছি না, সাবিহা, আমরা কাছে কোন বসতীর থেকে কয়েক হাজার কিলোমিটার দূরে আছি, আর এই দ্বীপটা দেখে মনে হচ্ছে, এখানে কেউ নেই, আমাদের উদ্ধার পাবার আশা খুব কম...”-বাকের মন খারাপ করে চারদিকে চোখ বুলাতে বুলাতে বললো।
“কিন্তু এই দ্বীপে আমরা খাদ্য আর পানির ব্যবস্থা হয়ত করতে পারবো, তাই না?”-সাবিহা জানতে চাইলো।
“হয়ত, দেখি আমাকে আগে খাবার পানির কোন উৎস খুঁজে বের করতে হবে, যদি পানি সত্যিই থেকে থাকে এই দ্বীপে। তোমরা দুজনে রোদ থেকে সড়ে ছায়ায় এসে বসো, আমি একটু চারদিকে ঘুরে দেখি কোথায় কি পাওয়া যায়”-এই বলে বাকের চলে গেলো দ্বিপের ভিতর দিকটাতে।

Reply With Quote
  #5  
Old 2 Weeks Ago
fer_prog fer_prog is online now
sex must be done with love
  Annual Masala Awards: Thread of the Year      
Join Date: 25th August 2009
Location: Dhaka, Bangladesh
Posts: 1,668
Rep Power: 27 Points: 8426
fer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autographfer_prog has celebrities hunting for his/her autograph
UL: 576.22 mb DL: 1.19 gb Ratio: 0.47
আহসান আর ওর মা আগে ওদের ভাঙ্গা বোট ও ওখানে থাকা অবশিষ্ট সামান্য কিছু মালপত্র তীরে নিরাপদ দুরত্তে টেনে আনলো, এরপরে ছায়ায় বসে চারদিকে তাকিয়ে দেখার চেষ্টা করলো যে এই দ্বীপে কি আছে? এখানে ওরা বেচে থাকতে পারবে কি না, সেই প্রশ্ন ঘুরছে দুজনের মনেই। কিন্তু অনেকদিন পরে বিধাতা ওদের প্রতি সত্যিই সুপ্রসন্ন ছিলো, তাই বাকের অল্প কিছু দূরে যেতেই একটা মিষ্টি পানির ঝর্না দেখতে পেলো, সেখান থেকে পানি খেয়ে শরীরে শক্তি করে নিলো, আর মনে মনে চিন্তা করলো যে এই ঝর্নার কাছেই ওদের একটা বাসস্থান তৈরি করার জন্যে উপযুক্ত জায়গা। কাছেই অল্প কিছু ফল গাছ ও পেয়ে গেলো বাকের, সেখান থেকে সে দ্রুত চলে এলো ওর স্ত্রী আর ছেলেকে সুসংবাদ দেয়ার জন্যে। সবাই মিলে পানি আর ফল খাওয়ার পর এখন চিন্তা এই দ্বীপে কি আছে, কোন মানুষ বা জনপ্রানী আছে কি না? বা এখান থেকে ওদের উদ্ধার পাওয়ার ব্যবস্থা কিভাবে হবে? পায়ের নিচে মাটির অস্তিত্ব পাওয়ার পর এখন পরবর্তী জীবনের সন্ধান। বাকের স্থির করলো যে আগে ওকে দেখতে হবে এই দ্বীপটাকে ভাল করে, এখানে জীবন ধারন খুব কঠিন হয়ে যাবে ওদের সবার জন্যে। কিন্তু সেই কঠিনের মাপকাঠি ঠিক করার জন্যে আগে পুরো দ্বীপটাকে ঘুরে দেখতে হবে।

ওদের দুজনকে বিশ্রাম করতে রেখে বাকের হাঁটতে শুরু করলো, দেখতে পেলো যে পুরো দ্বীপটা বেশ ঘন জঙ্গলে ভর্তি, ওখানে অনেক পশু পাখি আছে, কিন্তু ক্ষতিকর বা ভীতিকর কোন কিছু ওর নজরে এলো না, পুরো দ্বীপটা লম্বায় ৪ কিলোমিটার এর মত হবে আর চওড়ায় ও প্রায় সমান চওড়া। দ্বীপের মাঝামাঝি জায়গায় আরও একটা বড় ঝর্না দেখতে পেলো বাকের। ঝর্নার সামনে অনেকটা পুকুরের মত পানি জমে আছে আর চারপাশে অনেক পাথর দেখতে পেলো। দ্বিপের মাঝে বেশ কয়েকটি পাহাড় আছে, এর মধ্যে দুটি ছোট ছোট, আর বাকি গুলি বেশ বড় বড়, কিন্তু মানুষ উঠার মত অনুকুল জায়গা। পাহাড় দেখে বাকেরের মনে আশার সঞ্চার হলো যে, এখান থেকে অনেক দূর পর্যন্ত দেখা যাবে আর ওদের কাছাকাছি দিয়ে কোন জাহাজ এলে তাকে এই পাহাড় চূড়া থেকে সঙ্কেত পাঠানো যাবে। বাকের একটা বড় পাহাড়ে উঠতে শুরু করলো, যেন উঁচু জায়গা থেকে পুরো দ্বীপটাকে আরও ভালো করে দেখে নেয়া যায়। পাহাড়ের চুড়ায় এসে বাকের একটু বিশ্রাম নিলো, চারদিকে তাকিয়ে দেখে বুঝতে পারলো যে এই দ্বীপে ওদের জীবন ধারণের জন্যে পর্যাপ্ত পরিমাণ প্রাকৃতিক সম্পদ আছে, জীববৈচিত্র ও এখানে বিদ্যমান। ও যেই দিকে ওর স্ত্রী আর ছেলেকে রেখে এসেছে, সেই দিক থেকে বিপরীত দিকে তাকিয়ে দ্বীপের অন্য একটা খোলা কিনার, বালুতট দেখা যায়, সেখানে কিছু বিক্ষিপ্ত কাঠের মত কিছু জিনিষ দেখতে পেলো। বাকেরের মন খুশিতে দুলে উঠলো। সে ওই কালো রেখার মত জিনিষগুলি কি সেটা বুঝার জন্যে দ্রুত পাহাড় থেকে নেমে ওই দিকে অগ্রসর হলো।

আগেই বলেছিলাম যে বিধাতা কেন জানি ওদের উপর এই মুহূর্তে খুব সন্তুষ্ট, তাই তিনি যেন ওদের এই নির্জন দ্বীপে জীবন কাটানোর কিছু উপকরন নিজ হাতে এনে দিয়েছে। কাছে যেতেই বাকের বুঝতে পারলো যে এইগুলি ওদের জাহাজেরই কিছু ভাঙ্গা অংশ, যার সাথে বেশ কিছু হাড়ি পাতিল, অল্প কাপড়, আর জীবন ধারণের কিছু টুকিটাকি কিন্তু অতি প্রয়োজনীয় জিনিষ। বিশেষ করে অল্প সামান্য কিছু কাপড় পেয়ে মন খুশিতে ভরে উঠলো, যদি ও এই দুর্গম পরিবেশে বেচে থাকার জন্যে কাপড়ের পরিমাণ অতি সামান্য, কিন্তু একদম উলঙ্গ হয়ে থাকার চেয়ে এই অল্প কিছু কাপড় দিয়ে ওদের নিজেদের লজ্জাস্থান টুকু অন্তত পক্ষে ঢাকা যাবে এটা ভেবে বাকের খুশি হলো। বাকের মাটিতে বসে পরলো খুশিতে, উপরে আকাসের দিকে তাকিয়ে সৃষ্টিকর্তাকে নিজের মন থেকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করলো। এই অল্প কিছু জিনিষ ওদের জন্যে যে কি মহামুল্যবান এই মুহূর্তে, সেটা মনে করে খুশিতে মনটা ভরে উঠলো, মনে আর শরীরে যেন নতুন করে বাঁচার লড়াইয়ে নামার একটা সাহস আর অনুপ্রেরনা পেলো সে।

জাহাজের যেই ভাঙ্গা অংশ পেয়েছে সে, সেগুলি ওদের থাকার জায়গার কাছে টেনে নিয়ে যেতে পারলে, কোন রকমের শোয়ার একটা জায়গা তৈরি করা সম্ভব হবে। বাকের প্রথমেই সেই ভেসে আসা জিনিষগুলিকে দ্বীপের একটু উপরে যেখান থেকে সমুদ্রের ঢেউ এসে ভাসিয়ে নিয়ে যেতে পারবে না, সেখানে নিয়ে জড়ো করতে শুরু করলো। একা একা এই কাজে অনেক সময় ব্যয় হয়ে গেলো ওর, এর পড়ে যেটুকু জিনিষ একেবারে হাতে করে নেয়া সম্ভব সেগুলি নিয়ে সে সাবিহা আর আহসানের কাছে রওনা দিলো। ওদেরকে গিয়ে সেই খুশির সংবাদ শুনালো সে। সাবিহা আর আহসানের সাহায্যে সে ধীরে ধীরে সব জিনিষ ওদের থাকার জায়গায় নিয়ে এলো।

পরের বেশ কিছুদিন ওদের প্রচণ্ড পরিশ্রমের মধ্যে দিয়ে কেটে গেলো। বাকের এমনিতেই বেশ পরিশ্রমী মানুষ ছিলো, আর এখন এই প্রতিকুল পরিবেশে ওকে পরিশ্রমের মাত্রা আরও বাড়িয়ে দিতে হলো। নিজে যেন এক ৩০ বছরের যুবক এইভাবে সে ওদের নিজেদের জন্যে মাটির একটু উপরে কাঠ আর বাঁশ দিয়ে একটা মাচার মত ঘর আর উপরে একটা ছাউনি বানিয়ে ফেললো, মাচার সামনেই একটু নিচে আরও একটা ছোট মাচা বানাল যেন ওখানে আহসান শুতে পারে। আহসানের জন্যে শোবারর ব্যবস্থা একটু দূরে করতে চেয়েছিলো বাকের কিন্তু অজানা নির্জন দ্বীপে ছেলেকে কাছছাড়া করতে চাইলো না সাবিহা। ওদের দুজনের একমাত্র অবলম্বন যে এখন এই ছেলে, ওদের সমস্ত আশা ভরসা চিন্তা এখন আহসানকে ঘিরেই। যদি ও ওদের থাকার জায়গার চারপাশে কোন বেড়া দেয়া সম্ভব হলো না, যেটা ওদের দুজনের স্বামী-স্ত্রীর একান্ত জীবনের জন্যে প্রয়োজনীয় ছিলো কিন্তু তারপর ও সাবিহা কোনভাবেই আহসানকে দূরে রাখতে চায় না। ওদের থাকার মাচার সামনে থেকে দ্বিপের কিনার পর্যন্ত জঙ্গল সাফ করে একটা রাস্তার মত বানানো হলো, যেন মাচাতে বসেই ওরা সমুদ্র দেখতে পায়। এক সময় সাবিহার খুব শখ ছিলো সমুদ্র দেখার, এই বার যেন ওর সেই শখ ষোলআনা পূর্ণ করার ব্যবস্থা করে দিলেন উপরওয়ালা। ঘরের পাশেই একটা মাটির চুলা বানানো হলো, সেখানে কুড়িয়ে পাওয়া কিছু রান্নার জিনিস্পত্র দিয়ে প্রতিদিন এক বেলা রান্না করছে সাবিহা। সাবিহা নিজে খুব ভালো রান্না পারে না, কিন্তু সে শিক্ষিত মেয়ে, জানে কিভাবে কোন খাবারের মাধ্যমে নিজেদের শরীরের পুষ্টির চাহিদা পূরণ করতে হয়। বাকেরের ধরে আনা মাছ আর জঙ্গল থেকে তুলে আনা সবজিই এখন ওদের প্রধান খাদ্য হয়ে গেলো। ওদের হাতে উপকরন খুব সামান্যই ছিলো কিন্তু সেটা দিয়েই বাকের নিজের মেধা বুদ্ধি আর পরিশ্রম দ্বারা ওদের জীবন ধারণের জন্যে প্রয়োজনীয় যা কিছু দরকার সেগুলির ব্যবস্থা করতে লাগলো।

Reply With Quote
  #6  
Old 2 Weeks Ago
lovebangla lovebangla is offline
 
Join Date: 22nd February 2015
Posts: 36
Rep Power: 6 Points: 72
lovebangla is beginning to get noticed
মুভিটা আমি দেখেছি এবং আপনার গল্প ও অসাধারণ হচ্ছে। কিন্তু মুভিতে যে জিনিস টির অপুর্নতা ছিল আশা করি আপনি সেটি পূরন করে দিবেন। যদি বাকের কে সরিয়ে দিতে পারেন তাহলে ভাল হত। বাকের থাকলে ও ভাল। দেখা যাক আপনার মনে কি আছে!!!!

Reply With Quote
  #7  
Old 2 Weeks Ago
dreampriya's Avatar
dreampriya dreampriya is offline
Custom title
 
Join Date: 30th October 2013
Location: Dreamworld
Posts: 1,604
Rep Power: 12 Points: 2297
dreampriya is a pillar of our communitydreampriya is a pillar of our community
Nice start ....keep going ....
______________________________
LIFE IS VERY SMALL ...

Reply With Quote
  #8  
Old 2 Weeks Ago
22537's Avatar
22537 22537 is offline
 
Join Date: 28th March 2010
Posts: 228
Rep Power: 18 Points: 311
22537 has many secret admirers
UL: 16.00 kb DL: 3.37 mb Ratio: 0.00
Yes Boss... I am watching the Match !!!!!

Reply With Quote
  #9  
Old 2 Weeks Ago
mjrocks2011 mjrocks2011 is offline
 
Join Date: 11th April 2011
Posts: 416
Rep Power: 15 Points: 186
mjrocks2011 is beginning to get noticed
UL: 12.45 mb DL: 2.36 gb Ratio: 0.01
fine...story....nice

Reply With Quote
  #10  
Old 2 Weeks Ago
portechai123 portechai123 is offline
Custom title
 
Join Date: 13th January 2012
Posts: 1,692
Rep Power: 15 Points: 1169
portechai123 has received several accoladesportechai123 has received several accoladesportechai123 has received several accoladesportechai123 has received several accoladesportechai123 has received several accolades
nice start

Reply With Quote
Reply Free Video Chat with Indian Girls


Thread Tools Search this Thread
Search this Thread:

Advanced Search

Posting Rules
You may not post new threads
You may not post replies
You may not post attachments
You may not edit your posts

vB code is On
Smilies are On
[IMG] code is On
HTML code is Off
Forum Jump


All times are GMT +5.5. The time now is 09:15 AM.
Page generated in 0.09800 seconds