View Single Post
  #2  
Old 25th January 2017
uttam4004 uttam4004 is offline
Custom title
 
Join Date: 14th December 2015
Posts: 1,701
Rep Power: 9 Points: 1710
uttam4004 is a pillar of our communityuttam4004 is a pillar of our communityuttam4004 is a pillar of our communityuttam4004 is a pillar of our communityuttam4004 is a pillar of our communityuttam4004 is a pillar of our communityuttam4004 is a pillar of our communityuttam4004 is a pillar of our community
বুকুন



১.
কাল বাড়ি পৌঁছতে বেশ রাত হয়েছে, তারপর মায়ের সঙ্গে একটু গল্পগুজব করে ঘুমিয়েছি। তাই আজ সকালে মা যখন চা নিয়ে ডাকাডাকি করছে, তখন আমি গভীর ঘুমে।
এক তো কলকাতা থেকে এতটা জার্নির ক্লান্তি, তারপর অত রাতে ঘুমনো। তাই উঠতেই ইচ্ছে করছিল না। কিন্তু তারপরেই খেয়াল হল অঞ্জলি দিতে হবে। আজ সপ্তমী।
অনেকদিন পরে পুজোর সময়ে গ্রামে এসেছি। রোজই অঞ্জলিটা দেব ভেবে রেখেছি।
ঝট করে উঠে পড়ে দরজা খুলে এসে দেখি মা চায়ের কাপটা নিয়ে গিয়ে খাবার ঘরে টেবিলের ওপরে রাখছে।
আমাদের এই গ্রামের বাড়িতে ঘরের সঙ্গে লাগানো বাথরুম নেই। তাই মাকে বললাম, ‘চা টা ঢাকা দিয়ে রাখ। আমি বাথরুম থেকে আসছি।‘
ফিরে এসে চা খেয়ে বাথরুমে গিয়ে স্নান করে বেরলাম একেবারে।
পিয়ালী - আমার বউ - সুটকেসের কোন জায়গায় যে পাজামা পাঞ্জাবিগুলো দিয়েছে! দুটে পাজামা আর গোটা তিনেক পাঞ্জাবি দিতে বলেছিলাম ওকে।
একটু নীচের দিকে ছিল। খুঁজে পেয়ে একটা আকাশী নীল রঙের পাঞ্জাবি পড়লাম।
তারপর সাইকেলটা বার করতে করতে মাকে বললাম, ‘বেরলাম। অঞ্জলি দিয়ে একটু ঘুরে টুরে আসব।‘
ছোটবেলার চেনা জায়গাতে আজকাল আর পুজোটা হয় না। ওখানে বাড়িঘর হয়ে গেছে। তাই একটু দূরের মাঠে সরে গেছে আমাদের গ্রামের বারোয়ারি পুজো।
ছোটবেলায় দলবেঁধে সকালবেলা চলে আসতাম প্যান্ডেলে। দুপুরে একটু স্নান খাওয়া করেই আবার সেই রাত অবধি।
ঠাকুর দেখতে বেরনোর অত ব্যাপার ছিল না আমাদের তখন। কয়েক বছর পরপর হয়তো কাছের টাউনের দিকে নিয়ে যেত কাকারা কেউ। না নিয়ে গেলেও আমাদের মাথা ব্যাথা ছিল না। পুজোর সময়ে সারাদিন খেলতে পারাটাই আনন্দের।
এইসব ভাবতে ভাবতেই সাইকেল নিয়ে পুজোর মাঠে হাজির।
একদিকে সাইকেলটা রেখে প্যান্ডেলের ভেতরে ঢুকে দেখি অনেকলোক অঞ্জলি দিতে দাঁড়িয়ে গেছে। এরপরের বার হয়তো আমার জায়গা হবে।
যে ভদ্রমহিলা স্টেজের ওপরে দাঁড়িয়ে সবার হাতে ফুল দিচ্ছিলেন, তার মুখটা বেশ চেনা চেনা লাগছিল। গ্রামেরই কেউ হবে, সেটা তো নিশ্চিত। কিন্তু ঠিক কে, সেটা মনে করে উঠতে পারলাম না।
এমনিতেই কলেজের সময়ে থেকে আর গ্রামে থাকি না, আর এখন তো বছরে এক আধবারই আসা হয়!
তাই ঠিক চিনতে পারছিলাম না কে ওই ভদ্রমহিলা।
প্রথম ব্যাচের অঞ্জলি শেষ হল। সবাই শান্তি জল নিয়ে আস্তে আস্তে জায়গা ছাড়তে শুরু করল। আমি এগিয়ে গেলাম একটু।
ওই ভদ্রমহিলা আবারও ফুলের ঝুড়ি নিয়ে সবাইকে ফুল দিতে শুরু করলেন। আগে তো দূর থেকে দেখছিলাম, এখন কাছ থেকে দেখছি। আরও বেশী চেনা মনে হচ্ছে, কিন্তু মনে করতে পারছি না কে!
ভদ্রমহিলা একটা সুন্দর তাঁতের শাড়ি পড়েছেন – লালপাড় দেওয়া। মাথায় সিঁদুর। কাজের সুবিধা হবে বলে শাড়ির আঁচলটা পেঁচিয়ে কোমরে গুঁজে দিয়েছেন। সামান্য মেদ আছে কোমরের কাছে। ঘামে ভিজে গেছে উনার বগলটা।
হাত বাড়িয়ে রয়েছি আমি, ফুল নেওয়ার জন্য।
আমার দিকে ফুলভর্তি হাতটা এগিয়ে দিয়ে কয়েক সেকেন্ড হাঁ করে তাকিয়ে রইলেন ভদ্রমহিলা। তারপর বলে উঠলেন, ‘আরে রবিদা না? কবে এসেছিস?’
গলার স্বরটাও খুব চেনা, আমাকে দাদাও বলে আবার তুই-ও বলে! কিন্তু মনে করতে পারছি না কেন এ কে? আমি মাথা নেড়ে ভদ্রতা করে একটু হেসে বললাম , ‘কাল রাতে।‘
আশপাশের সবাইকে ফুল দিতে দিতেই উনি বললেন, ‘আমাকে চিনতে পারছিস তো, নাকি?
আমি একটু বোকা বোকা হেসে মাথা নাড়িয়ে বুঝিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলাম যে উনাকে চিনেছি। বুঝতে দিলাম না যে চিনতে পারি নি উনাকে তখনও।
‘কত্তদিন পরে দেখলাম তোকে রে!’
এই একটা শব্দ – ‘কত্তদিন’টা শুনেই মনে পড়ে গেল। এইভাবে কত্তদিন একজনই বলত।
ঝট করে মনে পড়ে গেল, বু-কু-ন...
আমার ছোটবেলা, বড় হয়ে ওঠার সঙ্গী.. আরও কত কিছু প্রথম পাওয়া ওর কাছ থেকেই
‘বু-কু-ন তো?’ আমার গলায় তখনও একটু অনিশ্চয়তা।
‘যাক চিনেছিস তাহলে! অঞ্জলি দিয়ে চলে যাস না কিন্তু।‘
পুরোহিত মশাই মন্ত্র পড়তে শুরু করেছেন।
আমি মা দুর্গার দিকে তাকিয়ে মন্ত্র পড়ছি বিরবির করে আর মাঝে মাঝে আড়চোখে দেখছি বুকুনের দিকে। একবার চোখাচোখিও হয়ে গেল।
ও ঠোঁট টিপে একটু হেসে মুখটা ঘুরিয়ে নিল অন্য দিকে।
অঞ্জলির শেষে প্যান্ডেলের বাইরে গিয়ে একটা সিগারেট ধরালাম।
কত স্মৃতি ভিড় করে এল মনের মধ্যে।
এরকমই একটা পুজোর দিন ছিল সেটা – সরস্বতী পুজো।
--
______________________________
আমার লেখা:
ধারাবাহিক উপন্যাস: ** দেশে-বিদেশে ** ** দক্ষিণী বৌদি ** ** বাইনোকুলার **
ছোটগল্প: * লকআউট * * সমাজসেবী *

Last edited by uttam4004 : 25th January 2017 at 10:17 PM.

Reply With Quote
Page generated in 0.00854 seconds