Xossip

Go Back Xossip > Mirchi> Stories> Regional> Bengali > অনঙ্গের গল্পসংগ্রহ

Reply Free Video Chat with Indian Girls
 
Thread Tools Search this Thread
  #1  
Old 7th July 2017
Anangapal's Avatar
Anangapal Anangapal is offline
  Regional Story Contest: Regional Story Contest Winner      
Join Date: 25th February 2017
Location: Bangalore, India
Posts: 69
Rep Power: 15 Points: 13170
Anangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universe
অনঙ্গের গল্পসংগ্রহ

অসতী


(রিজিওনাল স্টোরি কনটেস্ট ২০১৭-য় প্রকাশিত। শব্দসীমার রক্তচক্ষু এড়িয়ে এটি পরিবর্ধিত ও পরিমার্জিত সংস্করণ।)



কুক্-কু... কুক্-কু... কুক্-কু।

জার্মান ব্ল্যাকফরেস্ট ঘড়ির ভিতর থেকে ভেসে আসা যন্ত্রপাখির কলতান মিশে যাচ্ছে শীতাতপনিয়ন্ত্রিত ঘরের আনাচে-কানাচে। মিষ্টি সুরেলা আওয়াজে নিশিযাম ঘোষণা।
অর্থাৎ সময় এখন কাঁটায় কাঁটায় ঠিক রাত বারোটা।
আশ্বিন পেরিয়ে কার্তিকে ঢলতে চলল, বাতাসে কালীপুজোর পোড়া বারুদের ঘ্রাণ এখনও আবছাভাবে লেগে। এরইমধ্যে উত্তুরে হাওয়ার দাপট বেড়েছে খুব। হিমেল স্পর্শ থেকে আত্মরক্ষার তাগিদে কাশ্মীরী আলোয়ানটা আরেকটু ঘনিষ্ঠভাবে জড়িয়ে নেবার মাঝে সোফায় এসে বসলাম। পাশেই পতিদেবতা জবুথবু হয়ে অধিষ্ঠিত, মনোযোগী দৃষ্টি একটানা সেঁটে আছে টেলিভিশনের পর্দায়। যুবতী বউ ইঞ্চিকয়েক দূরত্বে বসে ওম বিলোচ্ছে, সেদিকে ভ্রূক্ষেপই নেই। কি যে এত দেখে হাঁ করে!

দৈত্যাকৃতি পর্দার নীলচে ঔজ্জ্বল্যে ভেসে ওঠা আলোকস্নাত টেনিস-কোর্ট। নেটের দু’পারে দুই যুযুধান প্রতিদ্বন্দ্বী, তাদের র*্যাকেটের আঘাতে পুঁচকে টেনিস বল যাতায়াত করছে ময়দানের এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্তে। ময়দান তো নয়, যেন রণক্ষেত্র! কিংবা রোমান কলোসিয়ামের বধ্যভূমি। তফাত শুধু একটাই। রড লেভার অ্যারিনা ঘিরে বসে থাকা হাজার পঞ্চাশ দর্শক এই মহাকাব্যিক দ্বৈরথের সামনে বাকরুদ্ধ। ইতিউতি অস্ফুট কিছু বিস্ময়সূচক প্রশস্তি বাদে কারওর মুখে কোনও শব্দ নেই।
স্তব্ধ আমিও, মুগ্ধ চোখে নিরীক্ষণ করে চলেছি পৌরুষের উদযাপন। চিতার মত ক্ষিপ্র গতির সাথে সিংহের অমিত শক্তির মিশেল। শরীরময় পেশীর আস্ফালন আর জান্তব হুংকার। কঠিন পুরুষালি দেহের প্রতিটি রেখা বেয়ে চুঁইয়ে পড়তে থাকা অজস্র স্বেদবিন্দু। বুকে নেশা ধরিয়ে দেয়!
নিরন্তর যুদ্ধের পর একজনের সাময়িক জয়। একটা গেম শেষ হল। দর্শকমণ্ডলীর স্বতস্ফূর্ত অভিবাদনের মাঝেই অন্তিম লড়াইয়ের প্রস্তুতি।

হায় ভগবান, এ যে দেখি রিপিট টেলিকাস্ট! ২০০৯ অস্ট্রেলিয়ান ওপেন সেমিফাইনাল। এটাই আমার স্বামীরত্নটি এতক্ষণ হাঁ করে গিলছিল!
রেগে উঠতে গিয়েও পারি না। বিস্ফারিত দৃষ্টি আটকে গেছে টিভির পর্দায়, সেখানে এখন আট বছর আগেকার স্কোরলাইন দেখাচ্ছে। ৬-৭, ৬-৪, ৭-৬, ৬-৭, ৫-৪। রাফায়েল নাদাল ভার্সেস ফার্নান্দো ভার্দেস্কো।
হৃদ্স্পন্দন একমুহূর্তের জন্য থেমে গেল কি? গালদু’টো অকারণেই লাল হয়ে উঠছে যেন, কানের ভিতর গরম হল্কার আভাস...

জানি, প্রলাপ বকছি। কি করি, নামগুলো দেখার পরে দেহমন আর নিজের বশে থাকছে কই?
তার চেয়ে বরং গল্পটা একদম গোড়া থেকে আরম্ভ করি।
...

আমি যাজ্ঞসেনী।
যাজ্ঞসেনী চ্যাটার্জি। ৩২, এক সন্তানের মা। কলকাতার খ্যাতনামা এক ব্যবসায়ী পরিবারে আমার বিয়ে হয় আট বছর আগে। অতুল বিত্তবৈভবের অধিকারিণী হওয়া সত্ত্বেও বহুজাতিক সংস্থার উচ্চপদে কর্মরতা। নিতান্ত সাধারণ মধ্যবিত্ত বাড়ির মেয়ে হয়ে আজ এই জায়গায় পৌঁছতে পেরেছি শুধুমাত্র রূপ আর মেধার জোরে। আজ্ঞে হ্যাঁ, আমার রূপ আগুনের মত, মহাভারতে যজ্ঞের অগ্নিকুণ্ড থেকে উঠে আসা দ্রৌপদীর যেমনটি ছিল। তার মতই শ্যামবর্ণা আমি, তারই মত স্বাধীনচেতা। সারাজীবনে সৌন্দর্যের ছটায় পুড়িয়ে ছারখার করেছি অনেক রথীমহারথীর হৃদয়। আজও আমায় দেখে ঈর্ষান্বিত হয় সদ্যফোটা নবযৌবনারা। সেদিক থেকে আমি সার্থকনামা।
কিন্তু দ্রৌপদীর ছিল পাঁচ স্বামী। আর আমি... একজনের গরবেই গরবিনী।

উদ্দালক, আমার বর, প্রথম আমায় দেখে ডোভারলেন সঙ্গীতসম্মেলনে। একবারের দর্শনেই সে শরাহত হয়েছিল। বন্ধুবান্ধব মারফত ফোননাম্বার আর ঠিকানা জোগাড় করতে বিশেষ বেগ পেতে হয়নি, বাকি কাজটা সারার দায়িত্ব নেয় ওর মা। আমার বাড়িতে, বলাই বাহুল্য হাতে চাঁদ পেয়েছিল। আমি অবশ্য আবেগে ভেসে যাইনি, বিয়ের আগে উদ্দালকের সাথে একান্তে দেখা করে বুঝে নিয়েছিলাম নিজের ভবিষ্যৎ পাওনাগণ্ডা। অভিজ্ঞ দোকানীর মত দাঁড়িপাল্লায় সবদিক তৌল করে তবেই রাজি হই। আমার দাবী ছিল অতি সামান্য, কোনওভাবেই আমার স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা যাবে না। স্বভাবে নরমপ্রকৃতির উদ্দালক বিনাবাক্যব্যয়ে তা মেনেও নিয়েছিল।
আমাদের বিবাহিতজীবন সুখের বলা চলে। দৃঢ়চেতা হলেও স্বেচ্ছাচারী নই আমি, নিজের নীড় হেলায় ভেঙে ফেলব এতটা বোকাও না। তাই বিয়ের পর সযত্নে উপেক্ষা করে গিয়েছি অগুনতি প্রলোভনের হাতছানি। বাইরে যতই আধুনিকা সাজি, ভিতর ভিতর সনাতন ভারতীয় নারী। উদ্দালকও আমার প্রতি একনিষ্ঠ। প্রেম? জানি না আমাদের মধ্যে আছে কিনা, যেটা নিশ্চিতভাবে আছে তা হল বোঝাপড়া।

দু’জনের বোঝাপড়া অটুট ছিল রাতের অন্ধকারে দাম্পত্যশয্যার নিভৃত ঘেরাটোপেও। ছিল, ততদিন... যতদিন আমি একঘেয়ে গতানুগতিকতায় হাঁফিয়ে না উঠেছি। হঠাৎই নিজের যৌবনবেলার কোনও এক সন্ধিক্ষণে আবিষ্কার করলাম, আর পারছি না আগের মত বেজে উঠতে। এমনকি অভিনয় করেও নয়। সে নীরব বার্তা ওর কাছে পৌঁছেছিল নিশ্চয়ই। অতএব স্বাদবদলের জন্য তড়িঘড়ি আয়োজন হল ফরেনট্রিপের। পরপর। হাওয়াই, মরিশাস, নিউজিল্যাণ্ড। মাসছয়েকের মধ্যে ট্রলিব্যাগের চাকায় জমল তিন মহাদেশের ধুলো।

কিন্তু দাম্পত্যের অন্দরমহলে জমে থাকা বরফ সে উষ্ণতায় গলল কই? অচেনা পরিবেশে, মহার্ঘ্য হোটেলরুমে অভ্যস্ত মৈথুনের যান্ত্রিকতায় সম্পর্কের শৈত্য বুঝি বেড়ে গেল কয়েকগুণ।
শীতঘুম ভেঙে উঠে দেখি উদ্দালক আর আমার মাঝে দুর্লঙ্ঘ্য দূরত্ব। কারোরই সাধ্য নেই একার চেষ্টায় অতিক্রম করি। হয়তো ইচ্ছেও নেই। ও ডুবে গেল নিজের কাজের ব্যস্ততায়।
অতৃপ্ত শরীর-মন নিয়ে একা অপেক্ষায় থাকি, কবে জ্বলে উঠবে দাবানল।
জানতাম না নিয়তি আমায় দেখে মুচকি হাসছে।
জানতাম না সেই প্রহর এত কাছে!

মার্চের গোড়ায় হঠাৎ একদিন অফিসে বসের জোর তলব। গিয়ে শুনি পরদিন লিসবনে গুরুত্বপূর্ণ কনফারেন্স, এদিকে কানপুরে তাঁর শাশুড়ি অন্তিমশয্যায়, না গেলেই নয়। অন্যান্য অধস্তনেরা ইয়ারএণ্ডিংয়ের আগে বিভিন্ন প্রজেক্টে হিমশিম, ভরসা করার মত নাকি একমাত্র এই যাজ্ঞসেনী।
যুদ্ধকালীন তৎপরতায় টিকিট, হোটেল-বুকিংয়ের ঝামেলা সামলে বাড়ি ফিরেই বসতে হল আনকোরা প্রেজেন্টেশন নিয়ে। সে পর্ব মিটতে ব্যাগ গোছানোর তাড়া। কাকডাকা ভোরে উঠে ঝড়ের গতিতে সবকিছু সেরে দীর্ঘ বিমানযাত্রা শেষে পর্তুগালের মাটিতে পা রাখছি যখন, আমার চোখের নিচে ক্লান্তির গাঢ় ছায়া।

এরপর দু’টো দিন কেটে গেল ব্যস্ততা আর আলস্যে হাতধরাধরি করে। প্রেজেন্টেশন শেষে অনেক তারিফ আর বাহবা কুড়োলাম, সেটা পেশাগত দক্ষতার কারণে নাকি অর্ধস্বচ্ছ শাড়ি পরিহিত আমার ফুটে ওঠা শরীরীরেখাদের জন্য- ভাবার মত মানসিক শক্তি অবশিষ্ট ছিল না। কনফারেন্স শেষ হতে বেশ কিছুটা বাকি থাকলেও সোজা চলে গেলাম নিজের স্যুইটে, কোনওরকম ফর্ম্যালিটির তোয়াক্কা না করে। সুন্দরীরা এটুকু ছাড় আশা করতেই পারে!
প্রচন্ড ঘুম পাচ্ছে, যেন কতকাল ঘুমোইনি।
একবার বিছানার নরম আশ্রয়ে নিজেকে ছেড়ে দিতেই রাজ্যের শ্রান্তি ভিড় করে এল চোখের পাতায়।

চোখ খুলতে দেওয়ালঘড়ি জানান দিল সাতটা বাজে। প্রায় ঘণ্টাতিনেক টানা ঘুমিয়েছি, শরীর এখন অনেকটাই ঝরঝরে। তাও চুপচাপ শুয়ে রইলাম খানিকক্ষণ। মস্তিষ্কের কোষগুলোতে চুঁইয়ে পড়ছে অবসাদ। কাল বিকেলে ফেরার ফ্লাইট, কি করব এতটা সময়? ভাবতেই হাসি পেয়ে গেল। এইমুহূর্তে বাড়িতে থাকলে কোন রাজকার্যটা করতাম? সেই তো একঘেয়ে দিনগত পাপক্ষয়। উদ্দালকও আজকাল অনেক রাত করে ফেরে, প্রতিযোগিতার বাজারে ব্যবসায় চাপ বাড়ছে। দু’জনের কতটুকুই বা কথা হয় সারাদিনে? শেষবার মিলিত হয়েছি বেড়াতে গিয়ে, দেশে ফেরার পর থেকে আর তো...
তবে কি বুড়ি হয়ে যাচ্ছি? মাত্র বত্রিশেই শুকিয়ে গেলাম আমি?
কি একটা ঘোরের মধ্যে উঠে দাঁড়িয়েছি। সামনেই মানুষপ্রমাণ আয়না। একটানে সরালাম নাইটির আড়াল, খুঁটিয়েখুঁটিয়ে দেখছি নিজেকে। উঁহু! মেঘের মত একঢাল চুল লুটিয়ে পড়েছে পিঠ ছাপিয়ে, তাদের আবরণের নীচে স্পষ্ট বোঝা যায় সুডৌল নিতম্বের আকর্ষণীয় গড়ন। অহংকারী গ্রীবার ত্বক এখনও টানটান। পাকা বেলের মত উদ্ধত স্তনজোড়া লেগে আছে দেহকাণ্ডের সাথে, মাধ্যাকর্ষণের বিরুদ্ধে যুদ্ধে অদ্যাবধি অপরাজিত। নিভাঁজ মসৃণ নাভির গভীরতায় নিয়মিত যোগব্যয়ামের স্বাক্ষর। ইঞ্চিকয়েক নীচে ঘনকুঞ্চিত চাদরে মোড়া ত্রিভুজ যেকোনও পুরুষের মনে আজও ঝড় তুলতে পারে। গোটা শরীরে যৌবন উপচে পড়ছে কানায় কানায়। এমন স্বর্গীয় নারীদেহ কি বিফলে যাবে?

কয়েকটা মুহূর্ত। মনস্থির করে ফেললাম। নিজেকে, নিজের শরীরের চাহিদাকে অবহেলা করেছি দিনের পর দিন। আর নয়। এবার এই প্রতীক্ষার অবসানের পালা। কি এমন লোকসান হবে বিদেশবিভুঁইতে এক রাতের জন্য একটু লাগামছাড়া হলে? আজকের রাতে বাকি সব পরিচয় থাক শিকেয় তোলা। আজ আমি কারও স্ত্রী, কারও মা, কারও মেয়ে নই।
আজ রাতে আমি শুধুই এক তৃষ্ণার্ত নারী।
অসতী নারী।

নিষিদ্ধ অভিসারের স্বপ্নে মশগুল হয়ে স্যুটকেস খুললাম। দু’দিনের ট্যুরের কথা ভেবে বেশি কিছু আনিনি, শুধু শাড়ি, জিন্স আর টপ। দ্যুৎ এইবেশে কি যাওয়া যায়? ঠোঁটকামড়ে ভাবতে ভাবতেই মনে পড়ল হোটেলের কাছে একটা প্রকাণ্ড মল! তড়িঘড়ি গায়ে কিছু একটা চাপিয়ে বেরিয়ে পড়েছি। এইরাত বাঁধভাঙার রাত। অভিসারিকার প্রস্তুতিও তেমনটি হওয়া চাই।
ঝটিকাসফর সেরে ফিরছি যখন, ঘড়িতে রাত আটটা। আসার পথে নজরে এল হোটেললাগোয়া সুইমিংপুলে উদ্দাম রাতপার্টির আসর বসেছে। আজ শুক্রবার, উইকেণ্ডের শুরু। চমৎকার! পদস্খলনের জন্যে আদর্শ।

শাওয়ারের উষ্ণ বারিধারার নীচে শরীর মেলে ধরলাম, আঃ কি শান্তি! ধুয়ে যাক সব মালিন্য, সব গ্লানি। জন্ম নিক এক নতুন আমি। জায়মান সে নারী যেন অকপটে উন্মোচিত হতে পারে অচেনা পুরুষের ক্ষুধার্ত দৃষ্টির সামনে।
স্নানসমাপনান্তে আভরিত করার পালা নিজেকে। একে একে নির্লজ্জার অঙ্গে উঠছে লেসদেওয়া নেটের কালো প্যাণ্টি, ব্রা, স্যাটিনের সমুদ্রনীল নুডলস্ট্র্যাপড মিনিস্কার্ট। ওমা! ড্রেসটা এত ছোট যে পুরুষ্টু থাইগুলোর প্রায় কিছুই ঢাকা পড়ছে না! শরীরের জ্যামিতির সাথে চেপে বসেছে আষ্ঠেপৃষ্ঠে। হঠাৎ দুষ্টুবুদ্ধি চাপল, নিমেষে খুলে ফেলেছি বক্ষবন্ধনী। আঁটো পোষাকের ছোঁয়ায় বুকের গোলাপকাঁটারা জাগছে অল্প-অল্প। পিঠকাটা ড্রেসের দাক্ষিণ্যে ব্রায়ের অভাব দৃশ্যতই পরিস্ফুট। বাড়াবাড়ি হয়ে গেল? হয়তো তাই, এখন আর কে পরোয়া করে? প্রসাধনে মন দিলাম। আজকের শৃঙ্গার দ্রৌপদীর নয়, উর্বশীর। মেকআপের তুলিতে আরও জীবন্ত হচ্ছে চোখের পাতা, চোখের কোল। ব্লাশের স্পর্শে গালে কৃত্রিম লজ্জারুণ আভা। কানে মানানসই ইয়াররিং। গাঢ় ওষ্ঠরাগে মাদক ঠোঁটদু’টো আরেকটু রাঙিয়ে উঠল। বিদেশী সুরভি ছড়াচ্ছি গ্রীবায়, বাহুমূলে, বুকের সুগভীর খাঁজে। সমস্যায় পড়লাম চুল নিয়ে, এই জলপ্রপাত কিভাবে সামলাই? অনেকে ভেবেচিন্তে সাইডবানে অবাধ্য কেশরাশিদের শাসন করে আয়নার সামনে দাঁড়াতেই অঙ্গে মৃদু শিহরণ। একটু ভারী গড়ন আমার, এই সাজপোষাকে মানাবে কিনা তা নিয়ে সামান্য দ্বিধা লেগে ছিল মনের কোণে। সংশয় একমুহূর্তে উধাও।

দর্পণে প্রতিবিম্বিত ঐ রূপসীর কামনার আগুন জ্বালিয়ে খাক করতে পারে যে কোনও পুরুষকে।
নিজের মধ্যে এখনও এতটা রহস্য অবশিষ্ট?
আসন্ন মিলনরজনীর উত্তেজনায় থরথরিয়ে উঠি। যেমনটি কেঁপেছিলাম কিশোরীবেলার প্রথম চুম্বনের আনন্দে।

স্টিলেটোর সশব্দ পদক্ষেপে গর্বোদ্ধতা হরিণীর মত নেমে এলাম। সামনের দিকটায় বেশ ভিড়। একটু যেতেই দেখি বাঁধভাঙা তারুণ্যের জোয়ার আছড়ে পড়ছে ডিস্কোথেক-অভিমুখে। মন্দ কি! ডান্সফ্লোরের মত অ্যাফ্রোডেসিয়াক নাকি হয় না। একসময় নাচটা ভালই রপ্ত ছিল, চেষ্টা করলে এখনও পারি সুরের ছন্দে শরীর দোলাতে।
আগুপিছু না ভেবে মিশে গেলাম ভিড়ের মধ্যে। আধোঅন্ধকারে স্প্যানিশ মিউজিকের তালে দুলছে কোমর, সেইসঙ্গে অনুভব করছি অচেনা হাতেরা মৃদুভাবে ছুঁয়ে যাচ্ছে দেহের গোপন অববাহিকাদের। অসতীত্বের প্রথম ধাপ? ক্ষতি নেই। আরেকটু অসংকোচে, আরও খোলামেলাভাবে তুলে ধরছি দেহপট, নৃত্যের ছলনায়। অসংখ্য ক্ষুধিত চোখ চেটেপুটে নিচ্ছে সে দৃশ্য।
কিন্তু চারিদিকে শুধু সদ্যযুবাদের ভিড়, অস্থির দৃষ্টিতে কিশোরসুলভ উচ্ছ্বাস। কি করে এরা বুঝবে পরিণত নারীর মর্ম? আজ যে আমার চাই অভিজ্ঞ পুরুষস্পর্শ। একপাল হায়েনার মাঝে চোখদু’টো খুঁজে ফেরে সেই পুরুষসিংহকে।

বেশি সময় লাগল না। বারের পাশে পানপাত্রে চুমুক দিতে দিতে একদৃষ্টে দেখে চলেছে আমার শরীরী হিল্লোল। চোখে চোখ পড়তেই ছ্যাঁৎ করে উঠল বুকের ভিতরটা। ঈশ্বর একে অনেক যত্ন নিয়ে বানিয়েছেন। পেটানো দীর্ঘ চেহারা, চওড়া কাঁধ, টানটান ঋজু মেরুদণ্ডে নিয়মিত শরীরচর্চার আভাস। একমাথা অবাধ্য চুলের কয়েকগাছি কপালে এসে পড়লে অবহেলায় তাদের স্বস্থানে ফেরত পাঠাচ্ছে। পরনে সাধারণ জিন্স-টিশার্ট, তাও কি অতুলনীয়!
মন্ত্রমুগ্ধার মত পায়েপায়ে এসে বসি পাশের সিটটায়। বুকের মাঝে সহস্র মাদল বাজছে। বাইরে অবশ্য একইরকম উন্নতগ্রীবা মরালীর ভাব, যেন তাকে লক্ষ্যই করিনি, স্রেফ নাচতে নাচতে ক্লান্ত হয়ে একটু জিরিয়ে নিচ্ছি।
ওদিকে না তাকালেও নারীসুলভ অতিরিক্ত ইন্দ্রিয় জানাল সে আমাকেই দেখছে। অযথা নিজের চুলগুলোকে নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ি। দুইহাত তোলার অছিলায় উন্মুক্ত হয় নির্লোম মসৃণ বাহুমূল। বক্ষশোভা আরও একটু ঠেলে ওঠে স্যাটিনের পাতলা আস্তরণ ভেদ করে। এ ব্রহ্মাস্ত্র আজ অবধি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়নি।
‘হাই, আয়্যাম রাফায়েল’
কানের খুব কাছে স্পষ্ট মন্দ্রস্বরে উচ্চারিত শব্দগুলো বোঝাল এখনও আমার অস্ত্র আগের মতই অব্যর্থ। অপাঙ্গে তাকালাম।
‘আয়্যাম যাজ্ঞসেনী’
‘হোয়্যার আর ইউ ফ্রম?’
‘ইণ্ডিয়া। ইউ মাস্ট বি পর্তুগীজ’
‘নো ডিয়ার, অ্যাম স্প্যানিশ’ একটু থেমে যোগ করল, ‘হোয়াট ডিড ইউ সে ইওর নেম ইজ?’
এমন খটোমটো নাম ইউরোপিয়ানদের বোধগম্য না হওয়ারই কথা, তাও চোখে কৌতুক ফুটিয়ে বললাম ‘যাজ্ঞসেনী’
‘স্যরি বাট ইটস টু ডিফিকাল্ট ফর মি টু প্রোনাউন্স, ক্যান আই জাস্ট কল ইউ জাগ্স?’
বলার ফাঁকে দৃষ্টি পলকে ছুঁয়ে গেছে উপচানো বুকেদের, ইঙ্গিতটা পরিষ্কার! অন্তঃকরণ একটু কেঁপে উঠল বুঝি, এ পুরুষ খেলতে জানে!
বাইরে যদিও ব্রীড়ার ভান করলাম। যেন কতই লজ্জা পেয়েছি! ‘মে আই কল ইউ রাফা?’ ‘অফ কোর্স ইউ ক্যান সুইটি’
ওর গভীর দৃষ্টিতে কি এক সম্মোহনীশক্তি লুকিয়ে। তাকিয়ে থাকলেও অস্বস্তি, অথচ সেদিকেই বারে বারে অবাধ্য চোখ চলে যায়!

তৃষিত চাহনি পড়তে পেরেছে। নিশ্চিতভাবেই জানে সামনের নারী কি চায়। তাও আমায় সহজ হওয়ার সুযোগ দিতে পরিচয়পর্ব আরেকটু দীর্ঘায়িত হতে দিল। কথায় কথায় জানলাম রাফা আর্ট-কালেকশান বিজনেসে জড়িত। এখানে ব্যবসার কাজেই আসা, একজন পার্টনারের সঙ্গে।
নিজের কথাও বললাম ওকে, তবে রেখেঢেকে। যতটুকু না বললেই নয়।
রাত যত গভীর হচ্ছে, আমার মন পাল্লা দিয়ে উচাটন। শুধু বাক্যালাপেই অতিবাহিত হবে এ মধুযামিনী?

ভেতরের ছটফটানি ওর চোখ এড়ায়নি। বারটেণ্ডারের কাছ থেকে একটা স্কচ অন রকস এগিয়ে দিল। আঙুলে আঙুল ঠেকতেই যেন চারশোচল্লিশ ভোল্টের প্রবাহ। আলতোভাবে হাতটা রাখল স্কার্টের নীচের বেআব্রু উরুতে। পুরুষালি হাতের উষ্ণতা আমার অন্দরেও চারিয়ে যাচ্ছে। স্কচ আর কামোত্তেজনা মিলেমিশে বিবশ করে ফেলেছে। তারই মাঝে টের পেলাম নিটোল জঙ্ঘায় মৃদু চাপ। আমন্ত্রণের ইশারা?
পানপাত্র একচুমুকে নিঃশেষ করেছি, কান দিয়ে গরম হল্কা বেরোচ্ছে। তরল আগুন গলা বেয়ে নেমে ছড়িয়ে গেল শিরা-উপশিরায়, সারা শরীরের কোষে জ্বালছে কামনার বহ্নিশিখা। দেখতে দেখতে তারা দাবানল হয়ে গ্রাস করে নিল আমার সমগ্র সত্তা। ঘোলাটে চোখে ওর দিকে তাকালাম।
‘আর ইউ অলরাইট?’ আরও কাছে ঘনিয়ে এল, ওর নিঃশ্বাস পড়ছে আমার গালে।
অন্দরের ক্ষুধার্ত নারী পেলব বাহুতে পেঁচিয়ে ধরল ওর ঘাড়, ঠোঁট মিশিয়ে দিলাম রুক্ষ পুরুষালি ঠোঁটে। চকোরির মত শুষে নিচ্ছি। রাফা আমার কোমরে হাত রেখে কাছে টেনে নিয়েছে। চারপাশের উদ্দাম জনস্রোতকে ভুলে গিয়ে আছড়ে পড়লাম সবল পুরুষবক্ষে। আপনা থেকে নিষ্পিষ্ট হচ্ছি ওর আলিঙ্গনে। উপোসী নারীওষ্ঠে একের পর এক দংশনের স্বাদ। আঃ, কতকাল অপেক্ষায় রয়েছি কেবল এই মুহূর্তটির জন্য।
সঙ্গীতের মূর্ছনার মাঝে নীরব আমরা, কথারা বাঙ্ময় হয়ে ছুটে চলেছে অধর থেকে অধরে। নিপুণ দক্ষতায় ও চুমু খাচ্ছে আমায়, ঠিক যতটা আশ্লেষে একজন নারীর অন্তঃস্থল ভিজতে বাধ্য।
কতক্ষণে বিচ্ছিন্ন হলাম জানিনা। ঠোঁটে অপার্থিব অনুভূতি, সেইসঙ্গে প্যাণ্টির লেসে আর্দ্রভাব।
এখন আমি পুরোপুরি প্রস্তুত।

চোখে-চোখে কথা হতে যেটুকু সময়ের প্রয়োজন। সম্মতি পাওয়ামাত্র শক্তিশালী থাবায় আমাকে ছোঁ মেরে নিয়ে হাজির করেছে এলিভেটরের সামনে। আড়চোখে ফ্লোরনির্দেশক সূচক দেখে বুঝলাম আমাদের গন্তব্য রাফার রুম।

‘ডিং’, দরজাবন্ধের সংকেতমাত্রই আবারও ঘনসন্নিবদ্ধ আমরা। রুক্ষতর দংশনে পীড়িত হচ্ছে আমার অধর। প্রত্যুত্তরে কামড়ে দিতেই মুঠোয় ধরল স্তন। চটকাচ্ছে ধীরনিশ্চিত লয়ে। অন্যহাত ব্যস্ত ভারসাম্য রক্ষার ছলনায় আমার কটিদেশ অনুসন্ধানে। মিনিস্কার্টের অন্তরালে ঢুকে নিষ্ঠুরভাবে টিপে চলেছে তম্বুরাকৃতি নিতম্ব। জানি এসব হোটেলে সর্বত্র নিরাপত্তাক্যামেরার অতন্দ্র প্রহরা, তবু দুঃসাহসিকা হয়ে একপা দিয়ে বেষ্টন করলাম ওর কোমর। দু’হাতে খামচে ধরেছি রেশমের মত চুল। জবাবে অন্য পা-টাও তুলে নিল নিজের হাতে, সিংহবিক্রমে আমায় ঠেসে ধরেছে লিফটের দেওয়ালে। আধো-অনাবৃত পিঠে শীতল ধাতব স্পর্শে শিউরে উঠেছি। আচমকা অভিঘাতে একদিকের নুডলস্ট্র্যাপটা খসে পড়তে না পড়তেই সুযোগসন্ধানী শিকারী সেটাকে নামিয়ে দিল অনেকখানি। চোখ বোজা থাকা সত্ত্বেও বুঝলাম আমার ডানদিকের বুক প্রায় সম্পূর্ণ উন্মুক্ত।
‘ডিং’, ঐ অবস্থাতেই আমায় নিয়ে বেরিয়ে এল রাফা। দু’হাত জড়ানো ঘাড়ে, নগ্ন পুরুষ্টু থাই প্রবল আলিঙ্গনে পাক দিয়ে রেখেছে ওর কোমর। আবছায়াভাবে করিডরে অন্যদের অস্তিত্ব চোখে পড়ল। পরোয়া করলাম না।

আমি এখন পরিপূর্ণ অসতী।

______________________________
"আশঙ্কাটা সাহিত্যের অশ্লীল হয়ে ওঠা নিয়ে নয়, অশ্লীলতার সাহিত্য সাজবার চাতুরি ও স্পর্ধা দেখে।" - প্রেমেন্দ্র মিত্র

I avoid bad writing... and those who encourage it.

Last edited by Anangapal : 10th July 2017 at 06:38 PM.

Reply With Quote
  #2  
Old 7th July 2017
Anangapal's Avatar
Anangapal Anangapal is offline
  Regional Story Contest: Regional Story Contest Winner      
Join Date: 25th February 2017
Location: Bangalore, India
Posts: 69
Rep Power: 15 Points: 13170
Anangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universe
ঘরটা বেশ বড়, একদম মধ্যিখানে ডাবলবেড। ঢোকার কয়েক সেকেণ্ডেই দুগ্ধফেননিভশয্যায় আছড়ে পড়েছি। একা নই, আমার ঠিক উপরে শুয়ে পাগলের মত চুমু খেয়ে চলেছে রাফা। উন্নত গ্রীবা, সুডৌল কাঁধ বেয়ে বুকের নরম চাতাল- সর্বত্র দংশন করছে তীব্র কামনায়। কানের লতিতে জিভের গরম স্পর্শে হিসিয়ে উঠলাম। দু’হাতে বেড় দিয়ে কাছে টেনেছি ওকে। দু’জনের চোখেই প্রজ্বলিত ধিকিধিকি আগুন। প্রবল আশ্লেষে ঠোঁট চুষছি পরস্পরের। ধীরে ধীরে ওর হাত উন্মোচিত করছে আমায়। মিনিস্কার্ট সরে গেল, পরনে শুধু অন্তর্বাস। এই প্রথম কোনও পরপুরুষের সামনে নিরাবরণ আমার বুকজোড়া। বিভাজিকার উপরে দুলছে সোনার লকেট, আমার আর উদ্দালকের বিবাহ-অভিজ্ঞান। নাকি আমার পরকীয়ার সাক্ষী? ভাবার সময় নেই। প্রগাঢ় সোহাগে দ্রবীভূত নারীসত্তা মিলনাকাঙ্ক্ষায় প্রসারিত করল দু’পা। সরাসরি আমন্ত্রণ গোপন বিবরে প্রবেশ করার।
রাফা কিন্তু এত অল্পে ধরা দিতে অনিচ্ছুক। ঈষৎ কর্কশ মুঠোয় ধরেছে নিটোল স্তন, অদ্ভুত দক্ষতায় সামান্য চাপ দিল। জীবনে প্রচুর নারীশিকারে অভিজ্ঞ হাতের স্পর্শে জেগে উঠল বৃন্তেরা। গোলাপকাঁটার আগায় দংশনের আকুল প্রত্যাশা। নিপুণ শিল্পীর হাতে অভ্রান্ত সুরে বাঁধা বাদ্যযন্ত্রের মত বেজে চলেছি। শরীর আর বশে নেই।
‘উম্মম্ম’, ভিতরের তোলপাড় শীৎকার হয়ে বেরিয়ে এল। বুকে ওর লেহনের সিক্ত অনুভব। নির্দয়ভাবে চুষছে উন্মুখ বোঁটাদের। কামড়াচ্ছে অ্যারিওলায়। অসহ্য পীড়নে কতকাল বাদে আবারও রোমাঞ্চিত এ নারীবক্ষ!

শরীর জুড়ে কামনাপোকার দংশন। আর পারছি না। বেশ কিছুক্ষণ ধরে নাভির কাছে প্রত্যাশিত আঘাতে বারেবারে কেঁপে উঠছিলাম। এবারে উদ্যত হয়েছি তার উৎস সন্ধানে। হাতের মুঠিতে ওর স্পর্ধিত পৌরুষ। ‘ওঃ!’ অজান্তেই চমকে উঠেছি। এত বড়? বহুদিনের উপবাসী নারীদেহ ভুলে গেছে সব সংস্কার। এক হাতে ওর লৌহোত্থানকে চটকাচ্ছি মনের সুখে, অন্যটা ওর চুলের মাঝে... বুকের উপরে মাথাটা চেপে ধরেছে তীব্র লালসায়। নির্মম পুরুষ এই সুযোগের অপেক্ষাতেই ছিল বুঝি, অসহনীয় মোচড়ে ব্যথায় কাতরে উঠল দুই স্তনবৃন্ত। একইসাথে যন্ত্রণা আর সুখের সম্মিলিত আঘাতে ভেঙে যাচ্ছে রমণীর যাবতীয় প্রতিরোধ। ভিতরের আগ্নেয়গিরি জেগে উঠে উগরে দিল এতকালের সঞ্চিত লাভা। উন্মুক্ত দুই জঙ্ঘা ভেসে যাচ্ছে দুর্নিবার স্রোতে। থিরিথিরি কাঁপছে শরীর, গোটা সত্তা। সারা ঘরময় এখন আমার জান্তব শীৎকারধ্বনি।
কত যুগের পরে প্রথম রাগমোচন।

সমে ফিরতে বেশ কিছুটা সময় গেল। শরীর যেন ভেসে বেড়াচ্ছে মেঘেদের উপর দিয়ে, এতটাই হাল্কা লাগছিল নিজেকে। কামনার জ্বালা যদিও পুরোপুরি স্তিমিত হয়নি। চেতনা আসতে বুঝলাম রাফা তার ঠোঁটের পরশ বুলিয়ে চলেছে আমার সারা অঙ্গে। দামাল দু’টো হাত খেলায় মত্ত শরীরের রহস্যময় চড়াই-উৎরাইয়ে। ওর কি কোনও ক্লান্তি নেই? আবেশে চোখ বুজে আদর উপভোগ করতে করতে টের পেলাম ওর মুখ আমার মুখের খুব কাছে। বন্ধচোখে নির্ভুল নিশানায় বাড়িয়ে দিলাম ওষ্ঠাধর। নিবিড় চুম্বনে বাঁধা পড়েছি। কামনার তরঙ্গেরা এক শরীর থেকে আরেক শরীরে প্রবাহিত হয়ে আবারও আমায় জাগিয়ে তুলল। হ্যাঁচকা টানে ওকে শুইয়েছি বিছানায়, উপরে আমি।
উদ্দালক বলে দাম্পত্যশয্যায় আমি নাকি ভয়ানক হিংস্র। কথাটা মিথ্যে নয়, পুরুষকে ডমিনেট করার মধ্যে চোরা একটা আনন্দ খুঁজে পাই। এবারে রাফাকে সেটা দেখানোর পালা।
উন্মত্ত বাঘিনীর মত হামলে পড়েছি, অনাবৃত করছি বিদেশী পুরুষের দেহসৌষ্ঠব। টিশার্ট-জিন্সের আবরণ ছাড়িয়ে বেরিয়ে পড়ল পেশীবহুল শরীর। প্রশস্ত ছাতি, চওড়া কাঁধ, মজবুত বাহুর সমাহারে অপূর্ব ভাস্কর্য। নির্নিমেষ চেয়ে থাকি। এমন প্রবল পুরুষের রমণের আকাঙ্ক্ষায় আবারও সিক্ত হচ্ছে অন্তঃস্থল। সিংহের মত কোমরের নীচে সগর্বে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে বিষাক্ত অজগর, উন্মোচিত রমণীকে দেখে উল্লাসে ফুঁসে উঠল।

মুখ নামিয়ে আনি, কামার্ত চুম্বনে ভরিয়ে দিই ওর সারা শরীর। দংশন করি পুরুষবৃন্তে, ঘাড়-গলায় জিভের আগ্রাসী লেহনে পাগল করে তুলি ওকে। সুপ্রশস্ত বুক, উন্মুক্ত গভীর নাভিতে খুঁজে বেড়াই পুরুষের আদিম ঘ্রাণ। ধীরে ধীরে আমার মুখ নিকটবর্তী হয় দৈত্যাকৃতি লিঙ্গের। আঙুলের সামান্য নিষ্পেষণ, তারপরেই মুখের ভিতর টেনে নিই আট ইঞ্চির জাগ্রত পৌরুষ। চুষতে থাকি পাগলিনীর মত। মাতাল করা বন্য স্বাদে ভরে যায় মুখ। উম্মম্ম, ঠিক যেন চকোলেট আইসক্রিম! চেটে চেটে কিছুতেই আশ মেটে না। আমার উদ্দাম মুখমেহনে কাতরে ওঠে ও, চুলে টান পড়তে বুঝি নীরবে অনুরোধ জানাচ্ছে গতি কমানোর। পুরোটা মুখে নেওয়ার চেষ্টা ব্যর্থ হয়, এতটাই বড়! অগত্যা লিঙ্গের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত জিভের তুলি বুলিয়ে চলি চিত্রকরের মত। বাদ পড়ে না ঝুলতে থাকা অণ্ডকোষেরাও। আমার মুখের মধুস্পর্শে আরও তীব্রভাবে আস্ফালন করছে রাফার পৌরুষ। নীলছবিতে দেখা বিবসনাদের ঢংয়ে লেহন করাকালীন চোখ রাখি ওর চোখে। নির্লজ্জ দৃষ্টিতে আমন্ত্রণের হাতছানি। ওর চোখেও সম্মতির ইশারা।
সেই বহুপ্রতীক্ষিত লগ্ন আসন্ন তবে!

বিছানার উপরে উঠে বসি। রাফার লৌহকঠিন পুংদণ্ড সোজা খাড়া হয়ে দাঁড়িয়ে মাথা তুলে। ঔদ্ধত্যে, অপেক্ষায়। একপলকের জন্য চোখ বন্ধ হয়ে আসে আমার, মনকে প্রস্তুত করি। অসতীত্বের শেষ ধাপটিতে পা দেওয়ার আগে ঝেড়ে ফেলতে থাকি সমস্ত সংকোচ, সংস্কার, জড়তা-লাজলজ্জা।
অবশেষে এল সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। চোখ বুজেই অনুভব করলাম এক পরপুরুষের উদ্ধত পৌরুষ জায়গা করে নিচ্ছে আমার যোনিপাত্রে। আমার অন্দরের নরম, আতপ্ত দেওয়ালে ঘষা খেতে খেতে এগিয়ে চলেছে দৃপ্তভঙ্গিমায়। উঃ কি অসহ্য সুখ! পা দু’টোকে সামান্য এগিয়ে-পিছিয়ে নিই যাতে আরও সাবলীল, আরও উন্মত্তভাবে দোল খেতে পারি আমার স্পেনীয় নাগরের পৌরুষের দোলনায়। বরাবরই কাউগার্ল আমার অন্যতম পছন্দের রতিপদ্ধতি। বহুবছরের অভ্যাসে লব্ধ অভিজ্ঞতার সবটুকু উজাড় করে উপর-নীচ করতে থাকি শরীর দুলিয়ে। প্রথমে ধীরলয়ে। ক্রমে বাড়ে লাফানোর গতিবেগ। নিষিদ্ধ প্রণয়ের রোমাঞ্চ আর প্রচণ্ড পুরুষের রমণে ভিতরের নারীত্বের ক্ষরণ বেড়ে যাচ্ছে প্রতিমুহূর্তে, গলিত-লাভার রূপ ধরে অনবরত ভিজিয়ে চলেছে যোনিদেশ। সেই প্রণোদনায় লৌহশলাকা অতিরিক্ত ইন্ধন পাচ্ছে আরও বেগে, আরও নির্মমভাবে কর্ষণের। শিরদাঁড়াকে একটু পিছিয়ে নিই, বক্র দেহভঙ্গিমার ফলে অনায়াস যাতায়াত বেড়ে যায় রাফার। ঠোঁটের চটুল ইঙ্গিতে তাকে আহ্বান করি প্রবলতর মন্থনের জন্য। সাইডবানে আবদ্ধ চুলের সমুদ্রের বাঁধ ভেঙে যায় আমার হাতের টানে, ঝরনার মত উন্মুক্ত কেশভার আছড়ে পড়ে দেহতটে। দুই বাহু মাথার উপর উত্তোলিত করতেই নির্লজ্জ পুরুষ্টু স্তনেরা সামনে উঁচিয়ে যেন ভর্ৎসনা করতে থাকে পুরুষকে। রাফা সেই অমোঘ আকর্ষণ অগ্রাহ্য করতে পারে না। ছটফটিয়ে এগিয়ে আসে ওর মুখ। দু’হাতে আমায় জাপটে ধরে ডুব দেয় বুকের গভীর অতলে। অমৃতের সন্ধানে চুষছে আমার তীক্ষ্ন্মুখী বোঁটাদের। ছন্দোবদ্ধ তালে মিলিত হতে থাকে দু’টো শরীর, কামনার আবেগে জারিত হয়। ক্রমে বাড়ে ওর কর্ষণের বেগ, নির্দয় পৌরুষের আক্রোশে ছিন্নভিন্ন করে চলে নারীর অভ্যন্তর। অস্ফুটে গোঙাতে থাকি, শীৎকারের মাত্রা আরও তীব্র হয় ওর প্রতিটি লক্ষ্যভেদের সাথে। পাগলের মত আঁকড়ে ধরি ওকে। দু’জনেরই রাগমোচন আসন্ন।
যৌথ বিস্ফোরণের পরে কেটে যায় অনন্তকাল। চেতনা হারিয়ে শুয়ে থাকি। পালকের মত হাল্কা হয়ে গেছে আমার নারীসত্তা, মেঘেদের দেশে সে ভেসে বেড়ায় অবাধে। শরীর বেয়ে ঢল নামে নাম না জানা অনুভূতিদের। এত সুখও লুকিয়ে থাকে দেহমিলনে?

সহসা তন্দ্রার ঘোর ছুটে যায়। ঘরের মধ্যে অপরিচিত কার যেন গলার আওয়াজ। এ তো রাফা নয়! চকিতে দরজার দিকে তাকাতেই চক্ষুস্থির। অদূরে সোফায় বসে দু’জন মানুষ নীচুস্বরে বার্তালাপে মগ্ন। একজন রাফা, অপরিচিত ব্যক্তিটি মাঝেমাঝেই লোলুপদৃষ্টি দিচ্ছে এদিকে।
ওঃ, আমি যে একদম নিরাবরণা! সভয়ে চাদর টেনে নিজের নগ্নতাকে ঢাকি। বুকের ভেতরটা ধড়ফড় করছে।
এতক্ষণে রাফা লক্ষ্য করেছে ব্যাপারটা। অন্যজনকে নিয়েই এগিয়ে এল খাটের কাছে।
‘হাই জাগ্স, দিস ইজ ফার্নান্দো, মাই পার্টনার’। ফার্নান্দো এগিয়ে এসে করমর্দন করে, একহাতে কোনওমতে নিজের আব্রুরক্ষা করতে করতেই প্রতিসম্ভাষণ জানাই, সাথে নিজের নামটাও।
‘আয়্যাম যাজ্ঞসেনী’
ফার্নান্দো এখনও লুব্ধচোখে তাকিয়ে, ওর ঐ দৃষ্টির সামনে কেমন কুঁকড়ে যাই। রাফা আবার একে এখন জোটালো কি জন্য?
মনের কথা পড়তে পেরেছে রাফা। খাটে বসে কানে-কানে যা বলল... প্রথমে বিশ্বাস করতে পারলাম না।
‘উড ইউ লাইক টু টেক বোথ অফ আস ইনসাইড... টুগেদার?’
নির্বাক বিস্ময়ে ওর দিকে তাকিয়ে আছি। কোনও প্রত্যুত্তর না পেয়ে ভরসা দেওয়ার চেষ্টা করল, ‘থ্রীসাম উইল বি মাচ মোর ফান’
যুক্তিবুদ্ধি সব কেমন গুলিয়ে যাচ্ছে। চোখের সামনে যা ঘটছে তা কি বাস্তব?
ফার্নান্দোর দিকে চোখ চলে গেল অজান্তেই। একটু কৃশকায়, রাফার মত অতটা স্বাস্থ্যবান নয়। কিন্তু হাতপায়ের গড়ন আকর্ষণীয়। সম্ভবত খেলাধুলো করত এককালে। সবথেকে দর্শনীয় হল ওর উচ্চতা। কিছু নাহোক ছয় তিন হবে!
কি সমস্ত ভাবছি আমি? সত্যিসত্যিই কি থ্রীসামে রাজি হয়ে গেল মন? এরা কি মনে করেছে আমায়, সহজভোগ্যা লম্পট নারী? সামান্য লোভ দেখালেই রাজি হয়ে যাবে জামাকাপড় খুলে পা ফাঁক করে শুয়ে পড়তে?
মনের ভিতরে আরেক মনে কষে ধমক দেয় আমাকে। ওরা কি ভাবছে তাতে আদৌ কিছু যায় আসে? ঐ দু’জন তো অচিন পাখি আমার জীবনে, রাত পোহালেই ফুড়ুৎ। কস্মিনকালে আর দেখাও হবে না।
আর সতীত্ব? হাঃ! সে তো এখনই খুইয়ে বসে আছি। একজনের সাথে করি বা দু’জনের সাথে, ব্যাপারটা তো একই। আমি নিজেই কি চাইনি আজকের রাতটা ঘটুক? যেচে নির্লজ্জার মত ডিস্কোথেকে নিজেই তো গিয়েছিলাম পুরুষ-শিকারে।
চিন্তায় মগ্ন হয়ে যাই, চারপাশের পরিবেশ, এই ঘর, রাফা আর ফার্নান্দো, লিসবনের কনফারেন্স- সবকিছু চলে যায় বিস্মরণে। মনের কন্দরে চলতে থাকে ছায়াযুদ্ধ।

ভাবনায় ছেদ পড়ে আচমকা। রাফা ডাকছে।
‘হেই জাগ্স, ডু ইউ নিড সাম ড্রিঙ্কস?’
হলে মন্দ হয় না। মাথায় যেমন জট পাকিয়েছে, একমাত্র তরল মদিরাই হয়তো পারবে এ সমস্যার সমাধান করতে।
কিছুক্ষণের মধ্যেই আবিষ্কার করলাম তিনজনে মিলে আড্ডা দিচ্ছি। রাফা বসে সোফায়, আমি সেই আগের মতই একখণ্ড চাদরে আবৃতা হয়ে খাটে আধশোয়া, আর বিছানার উপরে একটু দূরে শালীনতার দূরত্ব বজায় রেখে ফার্নান্দো। সকলের হাতে হুইস্কির গ্লাস।
সত্যি বলতে লোকটা অভদ্র নয় একেবারেই, কথাবার্তায় যথেষ্ট মার্জিত, রসবোধও আছে। অদ্ভুত সব জোক বলে ক্রমাগত হাসিয়ে চলেছে আমাদের। একবার তো হাসতে হাসতে বিষম খেয়ে হুইস্কি না চাদর কোনটা সামলাবো ঠিক করতে না পেরে বুকের বেশ খানিকটা দেখিয়েই ফেললাম। অবশ্য পরমুহূর্তেই সামলেছি, তবে তার মধ্যে ও দেখে নিয়েছে যা দেখার। দৃষ্টিতে ফুটে উঠল মুগ্ধতা।
এবারে আর ব্রীড়ার অভিনয় নয়, আপনা থেকেই কর্ণমূল আরক্তিম। আজ রাতে প্রকৃত অর্থেই আমার শরীর-মনে কি যেন রূপান্তর ঘটে গেছে! দু’জন অচেনা পুরুষের সাথে এভাবে অর্ধোন্মোচিতা হয়ে গল্প করছি- কয়েকঘণ্টা আগেও তো ছিল অকল্পনীয়!
হঠাৎই চোখ গেছে ফার্নান্দোর দু’পায়ের ফাঁকে। ওঃ মাই গড! আমায় এভাবে দেখলে একজন পুরুষের দেহে কি প্রতিক্রিয়া হয় সেটা এতগুলো বসন্ত কাটিয়ে আর মোটেই অজানা নয়, কিন্তু তা বলে... হি ইজ নট জাস্ট হিউজ, হি ইজ ইনর্মাস! রাফার চাইতেও বেশ খানিকটা বড়। রীতিমত দানবাকৃতি।
উদ্গত বিস্ময় আরেকটু হলে সশব্দে বেরিয়ে আসছিল, কোনওমতে মুখে হাতচাপা দিয়ে আটকেছি। রাফা বোধহয় সেটা লক্ষ্য করেছিল, আগের প্রশ্নটারই প্রতিধ্বনি ওর কথায়ঃ
‘সো জাগ্স, আর ইউ আপ ফর দ্যাট?’

এবারে আর আগের মত ত্রস্তভাব নেই, পরিবেশটাও অনেক হাল্কা হয়েছে। তবু নারীসুলভ সতর্কতায় চুপ করে রইলাম। মনের ভিতর কে যেন প্রতিনিয়ত বলে চলেছে, ‘জাস্ট ডু ইট যাজ্ঞসেনী। এমন সুযোগ জীবনে আর নাও আসতে পারে। ইফ ইউ গো ফর ইট, দেয়ার ওণ্টবি এনি রিগ্রেট’
শেষমেষ জয়ী হল সত্তার গভীরে লুকিয়ে থাকা অসতী, আজ রাতের জন্য যার কব্জায় অসহায় আমি।
মুখে কিছু না বলে হুইস্কির গ্লাসে একটা দীর্ঘ চুমুক দিলাম। সেইসঙ্গে খসে পড়ল এযাবৎ আমার ভারী বুকদু’টোকে ঢেকে রাখা চাদরটা।

মাত্র কয়েকমিনিটের ব্যবধান। আবারও শয্যায় চিত হয়ে শুয়ে আমি। হাতের আঙুলগুলো খেলা করে বেড়াচ্ছে ফার্নান্দোর খোলা বুকে। সে এখন ব্যস্ত পাগলের মত আমার দেহের প্রতিটি বিন্দু অশান্ত চুম্বনে ভরিয়ে তুলতে। ঠিক যেমনটি করছিল রাফা, কিছুক্ষণ আগে। তফাত শুধু নামে, আর ফার্নান্দোর আদরের ভঙ্গিতে। রাফার চাইতে আরেকটু মোলায়েম, কিন্তু ওর হাতের ছোঁয়ায় বুঝি জাদু আছে! এত অল্পসময়েই সিক্ত করে তুলেছে আমাকে। আবেশে চোখ বন্ধ করে উপভোগ করছি বিবশকরা সুখ, মন আর শরীর কোনওটাই নিজের নিয়ন্ত্রণে নেই। ফার্নান্দোর উত্তুঙ্গ পৌরুষের স্পর্শ পাচ্ছি উরুসন্ধির কাছে, আর থেকে থেকে আমূল কেঁপে উঠছে ভিতরটা।

আচমকা অন্যদিক থেকে আক্রমণ। রাফা এসে দখল করল বাঁদিকের বুকটা। আমার দুই স্তন এখন দু’জন বিদেশী পুরুষের কবলে। উন্মত্তের মত তারা যা খুশি তাই করে চলেছে উল্টোনো জামবাটির মত নধর বক্ষদেশে।
সোহাগে, শিহরণে, ভাললাগায় চোখ বন্ধ হয়ে গেল আপনা থেকেই। শরীর দিয়ে প্রাণপণে শুষে নিচ্ছি দুই প্রবল পুরুষের স্পর্শ। কি অনির্বচনীয় এ অনুভূতি!
সত্যি, তোমার অসতী হওয়া সার্থক, যাজ্ঞসেনী!

‘জাগ্স, আর ইউ রেডি নাউ?’
উত্তরের প্রয়োজন ছিল না, নীরব সম্মতি ফুটিয়ে তুললাম চোখের ভাষায়। রাফা উঠে কোথায় চলে গেল জানি না। ভাবার অবকাশও পেলাম না, মুহূর্তেই আমায় পরিপূর্ণভাবে অধিকার করেছে ফার্নান্দো। উন্মুখ আমিও, ওর পৌরুষের ভালবাসার স্বাদ পেতে।
দুই জানুর মাঝে মুখ নামিয়ে আমার গোপনদ্বারের গন্ধ নিচ্ছে ও। শিরশিরানি সারা শরীরের প্রতিটি কোষে। গোলাপকাঁটারা জেগে উঠেছে আবার, ফার্নান্দোর যোনিলেহনের অপূর্ব কৌশলে বইতে শুরু করল আমার গভীরের অন্তঃসলিলা ফল্গুধারা।
কতক্ষণ এইভাবে কেটেছে জানি না, নিজেকে একরকম ছেড়ে দিয়েছিলাম ওর কাছে। সমগ্র সত্তা আবারও কেঁপে উঠল যোনিমুখে ওর উদগ্র পৌরুষের স্পর্শে। নিবিড়ভাবে তাকালাম ওর চোখে। এবারে মন্থনের পালা।

বিছানায় চিত হয়ে শুয়ে ফার্নান্দো, আকাশের অভিমুখে সটান দৃপ্তভঙ্গিতে দণ্ডায়মান ওর বিস্ময়কর পৌরুষের ধ্বজা। এমন কোনও নারী বুঝি আজও জন্মায়নি যে এই ভয়ঙ্কর সুন্দর দৃশ্যে ভয় পাবে না।

কিন্তু আমি যে এযুগের যাজ্ঞসেনী। সেই কুরুক্ষেত্রযুদ্ধের সময় থেকে ভয় শব্দের অস্তিত্ব নেই আমার অভিধানে।
বারো বছরের বনবাস, অন্ধকারকক্ষে ধর্ষোন্মাদ কীচকের আস্ফালন, পাঁচ সন্তানের মৃত্যু কিছুই টলাতে পারেনি আমায়। ভরা রাজসভায় সম্মানহানির সময়েও অবিচল থেকেছি, মনের গোপন কোটরে জ্বলতে থাকা প্রতিশোধস্পৃহায় রুক্ষ চুলে মেখেছি বলাৎকারীর রক্ত।

আজ অসতী কলঙ্ক সগর্বে মাথায় নিয়ে নিজেকে সমূলে প্রোথিত করলাম ঐ ভীমলিঙ্গের উপর। মনে হল একটা ধাতবশলাকা যেন ঢুকে গেছে আমার অন্দরে, ফালাফালা করে চিরে ফেলছে নারীত্ব।
উন্মাদিনীর মত উপর-নীচ করছি, পীনোন্নত স্তনজোড়া লাফাচ্ছে অস্থির হয়ে। প্রবল কালবৈশাখীর দাপটে যেমন দুলতে থাকে গাছের ডালে ঝুলতে থাকা পক্ববিল্ব।
ফার্নান্দোও পারেনি এই অপার্থিব দৃশ্য দেখে স্থির থাকতে। আমাকে টেনে নিল নিজের দিকে। সতৃষ্ণ কামড় পাকা আঙুরের মত টসটসে বোঁটায়। শিশুর মত আকুতি নিয়ে পান করছে আমার যৌবন।

হঠাৎ পিছনে কি এক শীতল স্পর্শ। অপাঙ্গে তাকাতে দেখি রাফা... সযত্নে জেল মাখাচ্ছে আমার নিতম্বে, পায়ুদ্বারের চারপাশে, গুহাভ্যন্তরে, নিজের উত্থিত পৌরুষে।
মনে মনে প্রস্তুত হলাম।
অবশেষে সে প্রবেশ করল এতদিনের নিষিদ্ধ দুয়ারে। ফার্নান্দো তখনও একইভাবে কর্ষণ করে চলেছে। সমুদ্রমন্থনের অভিলাষে ওর বাসুকী সন্ধান করছে অজানা মণিমুক্তোর, আমার যোনিসাগরে।
যন্ত্রণা-ভাললাগা-উত্তেজনায় একাকার আমি!
সুখসায়রে তলিয়ে যেতে যেতে মনে পড়ল...

পাঁচ পতি থাকা সত্ত্বেও পঞ্চপাণ্ডবের নিজেদের চুক্তি অনুযায়ী প্রত্যেক ভাই দ্রৌপদীকে নিরবচ্ছিন্নভাবে ভোগ করার অধিকার পেতেন গোটা একটা বছর। বাকি চার স্বামী তখন পাঞ্চালীর চোখে পরপুরুষ!

এযুগের যাজ্ঞসেনী আমি, একইরাত্রে একসাথে দুই অচেনা পুরুষকে ধারণ করেছি নিজদেহে।

ধন্য এ অসতী জন্ম!



(সমাপ্ত)



পুনশ্চঃ কতক্ষণ তন্ময় হয়ে বসে এসব এলোমেলো ভাবছিলাম জানি না, সংবিৎ ফিরল টিভি বন্ধের আওয়াজে। উদ্দালক সোফা থেকে উঠে পড়েছে, তার গন্তব্য এখন বেডরুম। শয্যায় নিজের পিঠটা ঠেকাতে যতটুকু সময়ের অপেক্ষা, তারপরেই শুরু হবে নাসিকাগর্জন। এ আমার রোজনামচায় অধিকাংশ রাতের অভিজ্ঞতা।
ভূতের মত একা একা বসে থাকি। অদূরেই এলসিডি স্ক্রিনের বুকে আমার অস্বচ্ছ প্রতিবিম্ব।
কে ও? আমি, না লিসবনের স্বপ্নঝরানো সেই রাতের নারী?
কি যেন বলতে চায় সে।
নীরব সে ভাষা বুঝতে একটুও অসুবিধে হয় না। মোহাচ্ছন্নের মত শুনে যাই।

'অসতীত্বের পথ এখনও অনেক বাকি যাজ্ঞসেনী...'
______________________________
"আশঙ্কাটা সাহিত্যের অশ্লীল হয়ে ওঠা নিয়ে নয়, অশ্লীলতার সাহিত্য সাজবার চাতুরি ও স্পর্ধা দেখে।" - প্রেমেন্দ্র মিত্র

I avoid bad writing... and those who encourage it.

Last edited by Anangapal : 8th July 2017 at 03:12 AM.

Reply With Quote
  #3  
Old 7th July 2017
poka64's Avatar
poka64 poka64 is offline
Custom title
 
Join Date: 13th February 2012
Posts: 3,407
Rep Power: 27 Points: 10734
poka64 is one with the universepoka64 is one with the universepoka64 is one with the universepoka64 is one with the universe
নিয়মিত আসো ভাই
তোমার লেখা আরো চাই

Reply With Quote
  #4  
Old 7th July 2017
phoring's Avatar
phoring phoring is offline
 
Join Date: 11th April 2015
Posts: 104
Rep Power: 8 Points: 137
phoring is beginning to get noticed
দারুন

Reply With Quote
  #5  
Old 7th July 2017
palashlal palashlal is offline
Custom title
 
Join Date: 7th October 2013
Posts: 5,235
Rep Power: 23 Points: 9161
palashlal has celebrities hunting for his/her autographpalashlal has celebrities hunting for his/her autographpalashlal has celebrities hunting for his/her autographpalashlal has celebrities hunting for his/her autographpalashlal has celebrities hunting for his/her autographpalashlal has celebrities hunting for his/her autographpalashlal has celebrities hunting for his/her autographpalashlal has celebrities hunting for his/her autographpalashlal has celebrities hunting for his/her autograph
''যাজ্ঞসেনী''রা আছেন । কিন্তু ''কুরুক্ষেত্র'' কোথায় ? - যা দেখা গেল সে তো - '' ঊরু-ক্ষেত্র '' ! - সালাম ।

Reply With Quote
  #6  
Old 8th July 2017
chndnds chndnds is offline
Custom title
 
Join Date: 18th May 2011
Posts: 3,458
Rep Power: 26 Points: 7752
chndnds has celebrities hunting for his/her autographchndnds has celebrities hunting for his/her autographchndnds has celebrities hunting for his/her autographchndnds has celebrities hunting for his/her autographchndnds has celebrities hunting for his/her autographchndnds has celebrities hunting for his/her autographchndnds has celebrities hunting for his/her autographchndnds has celebrities hunting for his/her autographchndnds has celebrities hunting for his/her autographchndnds has celebrities hunting for his/her autographchndnds has celebrities hunting for his/her autograph
Excellent, khub valo

Reply With Quote
  #7  
Old 9th July 2017
Cute_Angel2704's Avatar
Cute_Angel2704 Cute_Angel2704 is offline
is a Bengali Heart ;)
  Moderator: Moderator of some forums      
Join Date: 10th December 2015
Location: City of Joy
Posts: 23,220
Rep Power: 59 Points: 39945
Cute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps database
এমন বর্ণনা সবাই পারেনা
আপনার লেখা আরও পড়তে চাই প্লিজ নিয়মিত লিখুন
______________________________
Before starting a story please do read the The Dos and Don'ts of Stories Section carefully.

Reply With Quote
  #8  
Old 9th July 2017
Cute_Angel2704's Avatar
Cute_Angel2704 Cute_Angel2704 is offline
is a Bengali Heart ;)
  Moderator: Moderator of some forums      
Join Date: 10th December 2015
Location: City of Joy
Posts: 23,220
Rep Power: 59 Points: 39945
Cute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps databaseCute_Angel2704 has hacked the reps database
______________________________
Before starting a story please do read the The Dos and Don'ts of Stories Section carefully.

Reply With Quote
  #9  
Old 9th July 2017
radiokolkata radiokolkata is offline
Custom title
 
Join Date: 20th November 2010
Posts: 1,896
Rep Power: 22 Points: 3182
radiokolkata is hunted by the papparaziradiokolkata is hunted by the papparaziradiokolkata is hunted by the papparaziradiokolkata is hunted by the papparaziradiokolkata is hunted by the papparaziradiokolkata is hunted by the papparazi
খুব সুন্দর!

Reply With Quote
  #10  
Old 9th July 2017
Anangapal's Avatar
Anangapal Anangapal is offline
  Regional Story Contest: Regional Story Contest Winner      
Join Date: 25th February 2017
Location: Bangalore, India
Posts: 69
Rep Power: 15 Points: 13170
Anangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universeAnangapal is one with the universe
Quote:
Originally Posted by poka64 View Post
নিয়মিত আসো ভাই
তোমার লেখা আরো চাই
Quote:
Originally Posted by phoring View Post
দারুন
Quote:
Originally Posted by palashlal View Post
''যাজ্ঞসেনী''রা আছেন । কিন্তু ''কুরুক্ষেত্র'' কোথায় ? - যা দেখা গেল সে তো - '' ঊরু-ক্ষেত্র '' ! - সালাম ।
Quote:
Originally Posted by chndnds View Post
Excellent, khub valo
Quote:
Originally Posted by Cute_Angel2704 View Post
এমন বর্ণনা সবাই পারেনা
আপনার লেখা আরও পড়তে চাই প্লিজ নিয়মিত লিখুন
Quote:
Originally Posted by radiokolkata View Post
খুব সুন্দর!
সবাইকে রেপুটেশন।
______________________________
"আশঙ্কাটা সাহিত্যের অশ্লীল হয়ে ওঠা নিয়ে নয়, অশ্লীলতার সাহিত্য সাজবার চাতুরি ও স্পর্ধা দেখে।" - প্রেমেন্দ্র মিত্র

I avoid bad writing... and those who encourage it.

Reply With Quote
Reply Free Video Chat with Indian Girls


Thread Tools Search this Thread
Search this Thread:

Advanced Search

Posting Rules
You may not post new threads
You may not post replies
You may not post attachments
You may not edit your posts

vB code is On
Smilies are On
[IMG] code is On
HTML code is Off
Forum Jump


All times are GMT +5.5. The time now is 04:18 PM.
Page generated in 0.03840 seconds