Xossip

Go Back Xossip > Mirchi> Stories> Regional> Bengali > মা হলেও নারী

Reply Free Video Chat with Indian Girls
 
Thread Tools Search this Thread
  #1  
Old 18th September 2015
nandanadas1975 nandanadas1975 is offline
 
Join Date: 13th September 2015
Location: শিল
Posts: 88
Rep Power: 5 Points: 353
nandanadas1975 has many secret admirers
মা হলেও নারী

আরেক টি গল্প শুরু করছি। আগের গল্প আর এটা দুটোই একসাথে চলবে। আপনারা দয়া করে পাশে থাকবেন

উফফ কি করছিস মা! হাওয়া টা কর না ঠিক করে। আঁচ টা তাড়াতাড়ি না ধরলে রান্না চাপাতে দেরি হয়ে যাবে যে সোনা মেয়ে রানি কে বলে যূথী ভিজে চুল টা উঠোনের মাঝে গিয়ে ঝাড়তে লাগলো একটা পাতলা গামছা দিয়ে। যূথীর চুল অনেক। হাঁটুর নীচে অব্দি ঘন ঢেউ খেলান চুল যূথীর। এই ৪০ এও ওর চুল যেকোনো কুড়ি বছরের মেয়েকে হার মানাবে। দেখতে সুন্দরী কিন্তু দারিদ্রতা মানুষের সৌন্দর্য কে মনে হয় কিছু টা হলেও ম্লান করে দেয়। আবার উল্টো টাও সত্যি। যূথী মনে দরিদ্র নয়। সেখানে সে রানির মতই সুখী। তাই এই চল্লিশেও যূথী যথেষ্ট যুবতী।যূথীর তিন সন্তান ,বড় ছেলে রাকা। ২৪ বছর বয়েস। বি এস সি পাশ করে পুলিশের পরীক্ষা দিয়ে পুলিশে চাকরি পেয়েছে। ট্রেনিং এ গেছে তিন মাসের জন্য।মেয়েটা তারপরে, রানি। এখন ক্লাস ফাইভ এ পড়ছে। আর সব থেকে ছোট আরেক টা ছেলে। এখন ও বুকের দুধ ছাড়ে নি। স্বামীর মৃত্যু হয়েছে বছর দুই আগে একটা এক্সিডেন্ট এ। কোন রকমে একে ওকে ধরে স্বামীর চাকরি টা পেয়েছিল যূথী। একটা প্রাইমারী স্কুল এ টিচার। নিজের গ্রাজুয়েশন টা করা ছিল বলে পেয়ে গেছিল যূথী। মাইনে বেশি না কিন্তু তাতে সংসার চালাতে অসুবিধা হয় নি যূথীর। স্বামীর মৃত্যুর পরে অসুবিধা হলেও ছেলে চাকরি পাবার পরে এখন বেশ গুছিয়ে এনেছে যূথী নিজের সংসার কে। কলকাতা থেকে প্রায় চল্লিশ কিমি দূরে এই আধা শহরে একটা দোতলা বাড়ি করে নিজের সুখের সংসার যূথী যে বানিয়েছে এর পুরোটাই যূথীর প্রাপ্য। আর হ্যাঁ রাকা। নিজের পড়াশোনা কে থামতে দেয় নি রাকা। নিজেকে ভারতের সব থেকে মুল্যবান পরীক্ষার জন্য প্রস্তুত করেছে ও। তারপরে চান্স পেয়ে আজকে ও বেশ বড় পুলিশ অফিসার হয়েই ট্রেনিং শেষ করেছে এই চব্বিশেই।
আজকে ফিরছে রাকা। এই গল্প আমার গল্প। গল্প কি? না এটা আমার জীবনী। হয়ত আমি লিখছি আজ থেকেই কিন্তু এর শুরু অনেক আগে। আমি তখন তের বছরের মেয়ে। কিন্তু সেটা আমি বলব পরে।
যূথী উনুন টা ধরে যেতেই কোন রকমে সাদা কাপড় টা পরে বিশাল চুল টা খোঁপা করে চশমা টা পরে নিল। মেয়ে রানি কে বলল ভাই কে দুয়ারে শুইয়ে রেখেছি একটু দেখিস। রানি চলে গেল ভাই এর সাথে খেলতে। রানিও খুব খুশী আজকে। ওর দাদাভাই আসছে প্রায় এক বছর বাদে। কত কিছু আনবে তার কি ঠিক আছে? মা বলেছে দাভাই এসে গেলে আর কোন চিন্তাই নাকি থাকবে না। যূথী রান্নায় মন দিল। রাকা হয়ত চলে আসবে কিছু পরেই। আলু ভাজা করে রেখেছে ও সকালেই।ছেলে আসলেই লুচি টা ভেজে দেবে। নই করেই রেখেছে। সেই সময়ে বাইরের দরজার কড়া নারাবার আওয়াজ পেয়ে যূথী মেয়েকে কে দেখার জন্য বলতেই উঠোনে ঢুকে এলো পাশের বাড়ির সরলা পিসি। পিসি বলে সম্পর্কের খাতিরে কিন্তু সরলার বয়েস যূথীর মতই। বন্ধুই বলা চলে।
- কি লো, আজকে তো ছেলে আসছে নাকি?
- হ্যাঁ রে পিসি। এলো বলে।
- হ্যাঁ যাই বলিস তোর কষ্টের দিন শেষ হল রে জুঁই। আমার টার কিছু ব্যবস্থা হলে হয়।
- অম্নি বলিস না পিসি। রাজা ও আমার ছেলে ভাল। ও ঠিক কিছু ভাল পেয়ে যাবে দেখিস।
- তোর মুখে ফুল চন্দন পড়ুক। দুজনাই তো ভাল বন্ধু।
- হ্যাঁ রে, সে তো বাড়িতে চার বার এলো সকাল থেকে। দিদি রাকা এলো? হি হি।
সেই সময়ে দুয়ারে শুয়ে থাকা ছেলে টা কেঁদে উঠতেই সরলা ছেলেটা কে কোলে নিয়ে দুয়ারে নামিয়ে রাখা একটা ঘটি দেখিয়ে যূথী কে বলল- শোন । ছেলের জন্য এক ঘটি দুধ রেখে গেলাম। আহা বড্ড খেতে ভালবাসে রাকা দুধ। আর ছোট টা কে নিয়ে যাচ্ছি আমি।
যূথী যেন হাঁপ ছেড়ে বাঁচল। এই সময় টা সরলা ছোট টা কে নিয়ে যায়। কারন যূথী স্কুল এ যায়। ওই ঘণ্টা পাঁচেক ছোট ছেলেটা সরলার কাছেই থাকে। আর আজকে যা কাজের চাপ তাতে একটু সরলার কাছে থাকলে ভালই হয়। - রানি মা আমার দুধের ঘটি টা রেখে দে তো রান্না ঘরে। আমি জাল দিয়ে নেব ক্ষণ।

দুয়ারে হাওয়া করতে করতে যূথী রাকা কে বলল- আর দুটো লুচি দি? রাকা বেশ আনন্দে খেতে খেতে বলল হুম্ম দাও। উফফ আলু ভাজা টা জাস্ট দারুন।। হেসে ফেলে যূথী খুন্তি দিয়ে আলু ভাজা দিল ছেলেকে আর দুটো ফোলা ফোলা লুচি দিল। ততক্ষনে রানি দাদার পিঠে চেপে দোল খেতে লেগেছে। যূথী দেখে চোখ পাকাল মেয়েকে। - ধিঙ্গি মেয়ে দাদাকে খেতে দিবি না? থাক না মা। কত দিন দাদার কোলে খেলতে পারিস নি বল? রাকার উত্তরে রানি আর ও পেয়ে বসল। এটা সেটার বায়না শুরু করল দাদাকে। যূথী মেয়েকে ঠাণ্ডা করার জন্য বলল- দাঁড়া না আজকে তুই আদর খা দাভাই এর, কালকে সব বলব যা যা দুষ্টুমি করিস।হেসে ফেলল রাকা আর যূথী দুজনেই। যূথী হাওয়া করতে লাগলো ছেলেকে আর দেখতে লাগলো। কাল হয়ে গেছে ছেলে অনেক। শরীর টা অনেক কাঠিন্যে ভরে গেছে। মুখ টা একটু কঠিন হয়েছে। আগে ছেলের যে একটা সরলতা ছিল সেইটা যেন আর নেই। চেহারার মধ্যে একটা ভারিক্কী ব্যাপার যেন বেশ জাকিয়ে বসেছে। গোঁফ রেখে একটা। হি হি। পায়রার বাসার মতন চুল আর নেই। ছোট ছোট করে ছাঁটা চুল এখন। খালি গায়ে খাবার সময়ে পুরো শরীরের পেশী গুলো যেন কিলবিল করছে। মা একটু জল দাও। যূথী তাড়াতাড়ি উঠে কল টিপে ঠাণ্ডা জল গেলাসে করে এনে ছেলেকে দিল। খাবার হয়ে যেতেই রাকা মায়ের সাদা কাপড়ের আঁচলে মুখ মুছল। যূথী হেসে বাঁচে না। সুধু দেখতেই তোমবাই হয়েছে ছেলে, স্বভাব এতো টুকু বদলায় নি। রাকা খেয়ে দেয়ে ঘরে ঢুকতে যেতেই যূথী বলল ওই ঘরে না রাকা অবাক হয়ে বলল - তবে? যূথী রাকা কে নিয়ে যে ঘরে ওর স্বামী শুত সেই ঘরে নিয়ে গেল। রাকা দেখল ওর মা সব পরিপাটি করে রেখেছে। বিছানা সুন্দর করে পাতা। - কেন এই ঘরে কেন মা?
- কারন ওই ঘরে চার জনে আর হয় না সোনা। আর তুই সারাদিন খেটে খুটে ফিরবি ওই গাদায় কেন শুবি বাবা। তোর ভাই রাতে ঘুময় কম জাগে বেশি।
রাকা সাড়া দিল না। যূথী বলল, - তোর পোস্টিং তো হৃদয় পুরে হয়েছে। বেশি দূর না এখান থেকে। কি করবি ওখানেই থাকবি না এখান থেকে যাতায়াত করবি।
- না না যাতায়াত করব। আধ ঘণ্টা লাগবে মা এখান থেকে। আর ওখানে একটা বাংলো আমি এমনি পাব। কিন্তু এখান থেকেই যাতায়াত করব। নাইট ডিউটি তে চেষ্টা করব চলে আসার, না হলে দেখা যাবে।
- সেই ভাল এখানে থাকলে বাড়ির দুটো খেয়ে যেতে পারবি। আমি টিফিন করে দেব।
- না না তোমার ও তো স্কুল আছে। অতো করতে হবে না তোমাকে মা
- উহহ খুব বড় হয়েছিস। আমি বুঝব আমার ছেলেকে আমি কি করে দেব কি করে দেব না।
বলে যূথী ছেলের মাথায় চুল গুলো মুঠি করে নাড়িয়ে দিতে গিয়েও পারল না। এতই ছোট করে কাটা চুল রাকার যে ধরতেই পারল না। রাকা হেসে টেনে নিল যূথী কে। বুকে মুখ রেখে চেপে ধরল মা কে। - কি যে মন খারাপ করত মা কি বলব। তোমাকে ছেড়ে রানি কে ছেড়ে। চোখে জল এলো যূথীর। সেও কি করে কাটিয়েছে এই এক বছর ওই জানে। ঠিক সেই সময়ে রানি ছুটে এলো ঘরে ।- আমিও যাব দা ভাইএর কাছে বলে এক লাফে রাকার কোলে। ঠিক সেই রময়ে বাইরে থেকে রাজার গলা পাওয়া গেল। রাকা ওই রাকা। --- আয় বলে বিছানা থেকে উঠে পড়ল রাকা। রাজা ঘরে ঢুকতেই, যূথী বলল ওই নে সকাল থেকে চার বার এলো রাজা এই নিয়ে। তোরা গল্প কর আমি চা করে দি তোদের । রাজা চায়ের কথা শুনে বলল দিদি তোমার সেই বিখ্যাত চা টা কোর প্লিস। যূথী হেসে ফেলল আর হাতে ধরে থাকা একটা লুঙ্গি দিয়ে রাজার পিঠে মেরে চলে গেল রান্না ঘরে। -- রানি দাদা ভাই কে আর রাজা মামা কে চা টা দিবি আয়। মায়ের আওয়াজে রানিও দৌড়ে গেল মায়ের কাছে। রানি চলে যেতেই রাজা রাকা কে বলল- কি বে শালা তুমি তো এখন অফিসার মানুষ। জয়েন কবে করছিস?
- দাঁড়া এই তো এলাম। এখন দিন কুড়ি ছুটি।
- হুম্ম তুমি শালা যত দিন থাকবে পার্টি কিন্তু রোজ চাই।
- এই না। রোজ না তবে জানিস তো আমি রাম ভক্ত।
- তবে আজ ই হোক?
- হোক।
- মাল ছাড়!!
রাকা কথা না বলে একটা হাজার টাকার নোট দিয়ে দিল রাজা কে। ঠিক তখন ই দু হাতে দুটো কাপ এ চা নিয়ে ঘরে ঢুকল যূথী। রাজা তাড়াতাড়ি যূথীর হাত থেকে কাপ দুটো নিয়ে সামনের টেবিল এ রাখল। যূথী রাজা কে চোখ কটমট করে বলল কিসের মাল ছাড়বে রে?
- হে হে দিদি অনেকদিন বাদে এলো তো তাই একটু।। কপট রাগ দেখিয়ে যূথী রাকার দিকে তাকিয়ে বলল যা খুশী কোর। ঘরে একটা ছোট বোন আছে খেয়াল থাকে যেন। বলে দুম দুম পা ফেলে চলে গেল।
যূথী চলে যেতেই রাজার পাছায় কষে একটা লাথ মারল রাকা। - শালা মায়ের সামনে না বললেই চলছিল না হারামি?
- উফফফ শালা বোকা ফ্রি করে দিলাম রে হারাম জাদা তোকে।। আবার একটা লাঠি কষিয়ে রাকা রাজা কে বলল- বাঞ্চত তোমাকে ফ্রি করতে কে বলেছিল??? বলে ও উঠে রান্না ঘরের দিকে গেল মা কে ভোলাতে।
যূথী জানত ছেলে পিছন পিছন আসবেই। ছেলে বড় হয়েছে এই বয়সের ছেলেরা যা কল্পনা ও করতে পারে না রাকা টার থেকেও উঁচু জায়গায় গেছে।ওর কোন আপত্তি নেই রাকা একটু আধটু মদ খেলে। আর ও জানেও যে রাকা কখনই সীমা লঙ্ঘন করে না। কিন্তু ও রাগ দেখাল কারন ও ভালবাসে রাকা ওকে ভোলাবে। ততক্ষনে উঠোন দিয়ে রাকার ভারি পায়ের আওয়াজ ও পাচ্ছে। রান্না ঘরে ঢুকেই বলল- মা কিছু না গো। আমি কিছু খাব না ওদের দিলাম আরকি। চাকরি পাবার পরে এখন তো ওদের খাওয়াই নি তাই একটু!!!!!! যূথী চুপ করে রইল। রাকা মায়ের মুখ টা দেখতে পাচ্ছে না পিছন থেকে। জড়িয়ে ধরল যূথী কে রাকা পিছন থেকে। বেশ শক্ত করেই। যূথী এটাই চাইছিল। রাকা ওর মায়ের ফুটবল এর মত বড় খোঁপায় পিছন থেকে নাক ঢুকিয়ে দিল। আআহহ কি মন কারা তীব্র গন্ধ। ওর মায়ের এই বিশাল মোটা লম্বা চুল ওর খুব প্রিয়। আর সেটা ও নাকের কাছে পেয়েই খুব করে নাক ঢুকিয়ে গন্ধ নিতে লাগলো। যূথীর ও ভাল লাগছিল। কিন্তু কপট রাগ দেখিয়ে বলল- বেশ ছাড়। যা খুশী করগে যা।। গলা টা যেন কেঁপে গেল যূথীর।
- ও মা প্লিস আমি খাব না প্লিস।। বলে আর বেশি করে ওর মা কে পিছন থেকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরল। বেশি শুঁকতে গিয়ে ওর মায়ের খোঁপা টা আলগা হয়ে গেল। আধ খোলা হয়ে গেল। ও নাক টা কে আর ও ঢুকিয়ে দিল গভীরে। যূথী নিজের ঘাড়ের কাছে ছেলের নাকের স্পর্শ পেল। খুব ভাল লাগছিল যূথীর। ঠিক সেই সময়ে উঠোনে সরলা এসে হাজির- কই রে অকম্মার ঢেঁকি টা। ঠিক এখানে এসে বসে আছিস? রাজা এই রাজা???????
রাকা ছেড়ে দিল মাকে। আসতে আসতে বলল প্লিস মা প্লিস।। যূথী হেসে ফেলল বটে কিন্তু বেশ বলার সময়ে গলা টা কেঁপে গেল ভাল রকম ই। এর আগেও রাকা এমন করেছে আগে। কিন্তু এতো ভাল লাগে নি কোনদিন। কেমন একটা অদ্ভুত লাগছিল যূথীর। কেমন যেন মনে হচ্ছিল সেই ছোট রাকা আর নেই। স্পর্শ টা কেমন কঠিন। কিন্তু যূথীর ভাল লাগছিল বেশ।রাকার পিছনে যূথী ও বেড়িয়ে এলো রান্না ঘর থেকে। সরলা দুজন কে দেখে বলল- কি রে বেটা মা কে পেয়ে আর ঠাকুমার দিকে লক্ষ্য নেই রে? যূথী রাকার দিকে তাকিয়ে বলল, কি রে ঠাকুমার সাথে দেখা করিস নি । রাকা রান্না ঘরের দুয়ার থেকে নেমে এসে প্রনাম করল সরলা কে। - থাক থাক বাবা অনেক বড় হউ।তা হ্যাঁ রে তোর ওই অজাত বন্ধু টার একটা ব্যবস্থা করে দে না বাবা! রাকা সরলার দিকে চেয়ে বলল চিন্তা কোর না ওর ও ভাল কিছু হবে।
ওরা দুজনায় বেড়িয়ে গেল আড্ডা মারতে। যাবার আগে রানি কে বেশ কিছু ভাল খেলনা দিয়ে গেছে রাকা। দুটো ভিডিও গেম কিনেছে বোনের জন্যে। রানি তাই নিয়ে খুশী। সরলা ঠিক পাশের বাড়িতেই থাকে। সরলার ও স্বামী মারা গেছে। কিন্তু ওর বর বড়লোক ছিল। ব্যাবসা ছিল তাই বড় বাড়ি টা ভাড়া দিয়ে ওদের চলে যাচ্ছে। এই মফঃস্বল এ ভাল ভাড়া না পাওয়া গেলেও দুই মা ব্যাটার চলে যায় ভালই।একটা মেয়ে আছে সরলার। এখন রানির সাথেই পড়ে। এক ই ক্লাসে। সরলা একটু মোটা। কোমর অব্দি কোঁকড়া চুল এর গোছা। একটু গ্রাম্য আলুথালু। যূথী একটু স্মার্ট। স্লিম। নিজেকে সাজাতে জানে। বিধবা হওয়া সত্বেও নিজেকে খুব সুন্দর করে বাইরে উপস্থাপনা করতে পারে। যেটা সরলা পারে না। চোখে অনেক পাওয়ার সত্বেও চশমা যূথী কে একটা সুন্দর ব্যাক্তিত্ব দিয়েছে। পিসি ভাইজি তে সব রকমের কথাই হয়। ওরা নামেই পিসি ভাইজি। কিন্তু এক ই বয়সের। যূথীর বাবার মামাতো বোন হল সরলা।


Reply With Quote
  #2  
Old 18th September 2015
Posaaani Posaaani is offline
Custom title
 
Join Date: 1st September 2014
Posts: 5,205
Posaaani has disabled reputations
Congratulations on starting a new thread and Story.
______________________________
దబిడి దిబిడే

Reply With Quote
  #3  
Old 18th September 2015
Posaaani Posaaani is offline
Custom title
 
Join Date: 1st September 2014
Posts: 5,205
Posaaani has disabled reputations
Quote:
Originally Posted by nandanadas1975 View Post
আরেক টি গল্প শুরু করছি। আগের গল্প আর এটা দুটোই একসাথে চলবে। আপনারা দয়া করে পাশে থাকবেন

উফফ কি করছিস মা! হাওয়া টা কর না ঠিক করে। আঁচ টা তাড়াতাড়ি না ধরলে রান্না চাপাতে দেরি হয়ে যাবে যে সোনা মেয়ে রানি কে বলে যূথী ভিজে চুল টা উঠোনের মাঝে গিয়ে ঝাড়তে লাগলো একটা পাতলা গামছা দিয়ে। যূথীর চুল অনেক। হাঁটুর নীচে অব্দি ঘন ঢেউ খেলান চুল যূথীর। এই ৪০ এও ওর চুল যেকোনো কুড়ি বছরের মেয়েকে হার মানাবে। দেখতে সুন্দরী কিন্তু দারিদ্রতা মানুষের সৌন্দর্য কে মনে হয় কিছু টা হলেও ম্লান করে দেয়। আবার উল্টো টাও সত্যি। যূথী মনে দরিদ্র নয়। সেখানে সে রানির মতই সুখী। তাই এই চল্লিশেও যূথী যথেষ্ট যুবতী।যূথীর তিন সন্তান ,বড় ছেলে রাকা। ২৪ বছর বয়েস। বি এস সি পাশ করে পুলিশের পরীক্ষা দিয়ে পুলিশে চাকরি পেয়েছে। ট্রেনিং এ গেছে তিন মাসের জন্য।মেয়েটা তারপরে, রানি। এখন ক্লাস ফাইভ এ পড়ছে। আর সব থেকে ছোট আরেক টা ছেলে। এখন ও বুকের দুধ ছাড়ে নি। স্বামীর মৃত্যু হয়েছে বছর দুই আগে একটা এক্সিডেন্ট এ। কোন রকমে একে ওকে ধরে স্বামীর চাকরি টা পেয়েছিল যূথী। একটা প্রাইমারী স্কুল এ টিচার। নিজের গ্রাজুয়েশন টা করা ছিল বলে পেয়ে গেছিল যূথী। মাইনে বেশি না কিন্তু তাতে সংসার চালাতে অসুবিধা হয় নি যূথীর। স্বামীর মৃত্যুর পরে অসুবিধা হলেও ছেলে চাকরি পাবার পরে এখন বেশ গুছিয়ে এনেছে যূথী নিজের সংসার কে। কলকাতা থেকে প্রায় চল্লিশ কিমি দূরে এই আধা শহরে একটা দোতলা বাড়ি করে নিজের সুখের সংসার যূথী যে বানিয়েছে এর পুরোটাই যূথীর প্রাপ্য। আর হ্যাঁ রাকা। নিজের পড়াশোনা কে থামতে দেয় নি রাকা। নিজেকে ভারতের সব থেকে মুল্যবান পরীক্ষার জন্য প্রস্তুত করেছে ও। তারপরে চান্স পেয়ে আজকে ও বেশ বড় পুলিশ অফিসার হয়েই ট্রেনিং শেষ করেছে এই চব্বিশেই।
আজকে ফিরছে রাকা। এই গল্প আমার গল্প। গল্প কি? না এটা আমার জীবনী। হয়ত আমি লিখছি আজ থেকেই কিন্তু এর শুরু অনেক আগে। আমি তখন তের বছরের মেয়ে। কিন্তু সেটা আমি বলব পরে।
যূথী উনুন টা ধরে যেতেই কোন রকমে সাদা কাপড় টা পরে বিশাল চুল টা খোঁপা করে চশমা টা পরে নিল। মেয়ে রানি কে বলল ভাই কে দুয়ারে শুইয়ে রেখেছি একটু দেখিস। রানি চলে গেল ভাই এর সাথে খেলতে। রানিও খুব খুশী আজকে। ওর দাদাভাই আসছে প্রায় এক বছর বাদে। কত কিছু আনবে তার কি ঠিক আছে? মা বলেছে দাভাই এসে গেলে আর কোন চিন্তাই নাকি থাকবে না। যূথী রান্নায় মন দিল। রাকা হয়ত চলে আসবে কিছু পরেই। আলু ভাজা করে রেখেছে ও সকালেই।ছেলে আসলেই লুচি টা ভেজে দেবে। নই করেই রেখেছে। সেই সময়ে বাইরের দরজার কড়া নারাবার আওয়াজ পেয়ে যূথী মেয়েকে কে দেখার জন্য বলতেই উঠোনে ঢুকে এলো পাশের বাড়ির সরলা পিসি। পিসি বলে সম্পর্কের খাতিরে কিন্তু সরলার বয়েস যূথীর মতই। বন্ধুই বলা চলে।
- কি লো, আজকে তো ছেলে আসছে নাকি?
- হ্যাঁ রে পিসি। এলো বলে।
- হ্যাঁ যাই বলিস তোর কষ্টের দিন শেষ হল রে জুঁই। আমার টার কিছু ব্যবস্থা হলে হয়।
- অম্নি বলিস না পিসি। রাজা ও আমার ছেলে ভাল। ও ঠিক কিছু ভাল পেয়ে যাবে দেখিস।
- তোর মুখে ফুল চন্দন পড়ুক। দুজনাই তো ভাল বন্ধু।
- হ্যাঁ রে, সে তো বাড়িতে চার বার এলো সকাল থেকে। দিদি রাকা এলো? হি হি।
সেই সময়ে দুয়ারে শুয়ে থাকা ছেলে টা কেঁদে উঠতেই সরলা ছেলেটা কে কোলে নিয়ে দুয়ারে নামিয়ে রাখা একটা ঘটি দেখিয়ে যূথী কে বলল- শোন । ছেলের জন্য এক ঘটি দুধ রেখে গেলাম। আহা বড্ড খেতে ভালবাসে রাকা দুধ। আর ছোট টা কে নিয়ে যাচ্ছি আমি।
যূথী যেন হাঁপ ছেড়ে বাঁচল। এই সময় টা সরলা ছোট টা কে নিয়ে যায়। কারন যূথী স্কুল এ যায়। ওই ঘণ্টা পাঁচেক ছোট ছেলেটা সরলার কাছেই থাকে। আর আজকে যা কাজের চাপ তাতে একটু সরলার কাছে থাকলে ভালই হয়। - রানি মা আমার দুধের ঘটি টা রেখে দে তো রান্না ঘরে। আমি জাল দিয়ে নেব ক্ষণ।

দুয়ারে হাওয়া করতে করতে যূথী রাকা কে বলল- আর দুটো লুচি দি? রাকা বেশ আনন্দে খেতে খেতে বলল হুম্ম দাও। উফফ আলু ভাজা টা জাস্ট দারুন।। হেসে ফেলে যূথী খুন্তি দিয়ে আলু ভাজা দিল ছেলেকে আর দুটো ফোলা ফোলা লুচি দিল। ততক্ষনে রানি দাদার পিঠে চেপে দোল খেতে লেগেছে। যূথী দেখে চোখ পাকাল মেয়েকে। - ধিঙ্গি মেয়ে দাদাকে খেতে দিবি না? থাক না মা। কত দিন দাদার কোলে খেলতে পারিস নি বল? রাকার উত্তরে রানি আর ও পেয়ে বসল। এটা সেটার বায়না শুরু করল দাদাকে। যূথী মেয়েকে ঠাণ্ডা করার জন্য বলল- দাঁড়া না আজকে তুই আদর খা দাভাই এর, কালকে সব বলব যা যা দুষ্টুমি করিস।হেসে ফেলল রাকা আর যূথী দুজনেই। যূথী হাওয়া করতে লাগলো ছেলেকে আর দেখতে লাগলো। কাল হয়ে গেছে ছেলে অনেক। শরীর টা অনেক কাঠিন্যে ভরে গেছে। মুখ টা একটু কঠিন হয়েছে। আগে ছেলের যে একটা সরলতা ছিল সেইটা যেন আর নেই। চেহারার মধ্যে একটা ভারিক্কী ব্যাপার যেন বেশ জাকিয়ে বসেছে। গোঁফ রেখে একটা। হি হি। পায়রার বাসার মতন চুল আর নেই। ছোট ছোট করে ছাঁটা চুল এখন। খালি গায়ে খাবার সময়ে পুরো শরীরের পেশী গুলো যেন কিলবিল করছে। মা একটু জল দাও। যূথী তাড়াতাড়ি উঠে কল টিপে ঠাণ্ডা জল গেলাসে করে এনে ছেলেকে দিল। খাবার হয়ে যেতেই রাকা মায়ের সাদা কাপড়ের আঁচলে মুখ মুছল। যূথী হেসে বাঁচে না। সুধু দেখতেই তোমবাই হয়েছে ছেলে, স্বভাব এতো টুকু বদলায় নি। রাকা খেয়ে দেয়ে ঘরে ঢুকতে যেতেই যূথী বলল ওই ঘরে না রাকা অবাক হয়ে বলল - তবে? যূথী রাকা কে নিয়ে যে ঘরে ওর স্বামী শুত সেই ঘরে নিয়ে গেল। রাকা দেখল ওর মা সব পরিপাটি করে রেখেছে। বিছানা সুন্দর করে পাতা। - কেন এই ঘরে কেন মা?
- কারন ওই ঘরে চার জনে আর হয় না সোনা। আর তুই সারাদিন খেটে খুটে ফিরবি ওই গাদায় কেন শুবি বাবা। তোর ভাই রাতে ঘুময় কম জাগে বেশি।
রাকা সাড়া দিল না। যূথী বলল, - তোর পোস্টিং তো হৃদয় পুরে হয়েছে। বেশি দূর না এখান থেকে। কি করবি ওখানেই থাকবি না এখান থেকে যাতায়াত করবি।
- না না যাতায়াত করব। আধ ঘণ্টা লাগবে মা এখান থেকে। আর ওখানে একটা বাংলো আমি এমনি পাব। কিন্তু এখান থেকেই যাতায়াত করব। নাইট ডিউটি তে চেষ্টা করব চলে আসার, না হলে দেখা যাবে।
- সেই ভাল এখানে থাকলে বাড়ির দুটো খেয়ে যেতে পারবি। আমি টিফিন করে দেব।
- না না তোমার ও তো স্কুল আছে। অতো করতে হবে না তোমাকে মা
- উহহ খুব বড় হয়েছিস। আমি বুঝব আমার ছেলেকে আমি কি করে দেব কি করে দেব না।
বলে যূথী ছেলের মাথায় চুল গুলো মুঠি করে নাড়িয়ে দিতে গিয়েও পারল না। এতই ছোট করে কাটা চুল রাকার যে ধরতেই পারল না। রাকা হেসে টেনে নিল যূথী কে। বুকে মুখ রেখে চেপে ধরল মা কে। - কি যে মন খারাপ করত মা কি বলব। তোমাকে ছেড়ে রানি কে ছেড়ে। চোখে জল এলো যূথীর। সেও কি করে কাটিয়েছে এই এক বছর ওই জানে। ঠিক সেই সময়ে রানি ছুটে এলো ঘরে ।- আমিও যাব দা ভাইএর কাছে বলে এক লাফে রাকার কোলে। ঠিক সেই রময়ে বাইরে থেকে রাজার গলা পাওয়া গেল। রাকা ওই রাকা। --- আয় বলে বিছানা থেকে উঠে পড়ল রাকা। রাজা ঘরে ঢুকতেই, যূথী বলল ওই নে সকাল থেকে চার বার এলো রাজা এই নিয়ে। তোরা গল্প কর আমি চা করে দি তোদের । রাজা চায়ের কথা শুনে বলল দিদি তোমার সেই বিখ্যাত চা টা কোর প্লিস। যূথী হেসে ফেলল আর হাতে ধরে থাকা একটা লুঙ্গি দিয়ে রাজার পিঠে মেরে চলে গেল রান্না ঘরে। -- রানি দাদা ভাই কে আর রাজা মামা কে চা টা দিবি আয়। মায়ের আওয়াজে রানিও দৌড়ে গেল মায়ের কাছে। রানি চলে যেতেই রাজা রাকা কে বলল- কি বে শালা তুমি তো এখন অফিসার মানুষ। জয়েন কবে করছিস?
- দাঁড়া এই তো এলাম। এখন দিন কুড়ি ছুটি।
- হুম্ম তুমি শালা যত দিন থাকবে পার্টি কিন্তু রোজ চাই।
- এই না। রোজ না তবে জানিস তো আমি রাম ভক্ত।
- তবে আজ ই হোক?
- হোক।
- মাল ছাড়!!
রাকা কথা না বলে একটা হাজার টাকার নোট দিয়ে দিল রাজা কে। ঠিক তখন ই দু হাতে দুটো কাপ এ চা নিয়ে ঘরে ঢুকল যূথী। রাজা তাড়াতাড়ি যূথীর হাত থেকে কাপ দুটো নিয়ে সামনের টেবিল এ রাখল। যূথী রাজা কে চোখ কটমট করে বলল কিসের মাল ছাড়বে রে?
- হে হে দিদি অনেকদিন বাদে এলো তো তাই একটু।। কপট রাগ দেখিয়ে যূথী রাকার দিকে তাকিয়ে বলল যা খুশী কোর। ঘরে একটা ছোট বোন আছে খেয়াল থাকে যেন। বলে দুম দুম পা ফেলে চলে গেল।
যূথী চলে যেতেই রাজার পাছায় কষে একটা লাথ মারল রাকা। - শালা মায়ের সামনে না বললেই চলছিল না হারামি?
- উফফফ শালা বোকা ফ্রি করে দিলাম রে হারাম জাদা তোকে।। আবার একটা লাঠি কষিয়ে রাকা রাজা কে বলল- বাঞ্চত তোমাকে ফ্রি করতে কে বলেছিল??? বলে ও উঠে রান্না ঘরের দিকে গেল মা কে ভোলাতে।
যূথী জানত ছেলে পিছন পিছন আসবেই। ছেলে বড় হয়েছে এই বয়সের ছেলেরা যা কল্পনা ও করতে পারে না রাকা টার থেকেও উঁচু জায়গায় গেছে।ওর কোন আপত্তি নেই রাকা একটু আধটু মদ খেলে। আর ও জানেও যে রাকা কখনই সীমা লঙ্ঘন করে না। কিন্তু ও রাগ দেখাল কারন ও ভালবাসে রাকা ওকে ভোলাবে। ততক্ষনে উঠোন দিয়ে রাকার ভারি পায়ের আওয়াজ ও পাচ্ছে। রান্না ঘরে ঢুকেই বলল- মা কিছু না গো। আমি কিছু খাব না ওদের দিলাম আরকি। চাকরি পাবার পরে এখন তো ওদের খাওয়াই নি তাই একটু!!!!!! যূথী চুপ করে রইল। রাকা মায়ের মুখ টা দেখতে পাচ্ছে না পিছন থেকে। জড়িয়ে ধরল যূথী কে রাকা পিছন থেকে। বেশ শক্ত করেই। যূথী এটাই চাইছিল। রাকা ওর মায়ের ফুটবল এর মত বড় খোঁপায় পিছন থেকে নাক ঢুকিয়ে দিল। আআহহ কি মন কারা তীব্র গন্ধ। ওর মায়ের এই বিশাল মোটা লম্বা চুল ওর খুব প্রিয়। আর সেটা ও নাকের কাছে পেয়েই খুব করে নাক ঢুকিয়ে গন্ধ নিতে লাগলো। যূথীর ও ভাল লাগছিল। কিন্তু কপট রাগ দেখিয়ে বলল- বেশ ছাড়। যা খুশী করগে যা।। গলা টা যেন কেঁপে গেল যূথীর।
- ও মা প্লিস আমি খাব না প্লিস।। বলে আর বেশি করে ওর মা কে পিছন থেকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরল। বেশি শুঁকতে গিয়ে ওর মায়ের খোঁপা টা আলগা হয়ে গেল। আধ খোলা হয়ে গেল। ও নাক টা কে আর ও ঢুকিয়ে দিল গভীরে। যূথী নিজের ঘাড়ের কাছে ছেলের নাকের স্পর্শ পেল। খুব ভাল লাগছিল যূথীর। ঠিক সেই সময়ে উঠোনে সরলা এসে হাজির- কই রে অকম্মার ঢেঁকি টা। ঠিক এখানে এসে বসে আছিস? রাজা এই রাজা???????
রাকা ছেড়ে দিল মাকে। আসতে আসতে বলল প্লিস মা প্লিস।। যূথী হেসে ফেলল বটে কিন্তু বেশ বলার সময়ে গলা টা কেঁপে গেল ভাল রকম ই। এর আগেও রাকা এমন করেছে আগে। কিন্তু এতো ভাল লাগে নি কোনদিন। কেমন একটা অদ্ভুত লাগছিল যূথীর। কেমন যেন মনে হচ্ছিল সেই ছোট রাকা আর নেই। স্পর্শ টা কেমন কঠিন। কিন্তু যূথীর ভাল লাগছিল বেশ।রাকার পিছনে যূথী ও বেড়িয়ে এলো রান্না ঘর থেকে। সরলা দুজন কে দেখে বলল- কি রে বেটা মা কে পেয়ে আর ঠাকুমার দিকে লক্ষ্য নেই রে? যূথী রাকার দিকে তাকিয়ে বলল, কি রে ঠাকুমার সাথে দেখা করিস নি । রাকা রান্না ঘরের দুয়ার থেকে নেমে এসে প্রনাম করল সরলা কে। - থাক থাক বাবা অনেক বড় হউ।তা হ্যাঁ রে তোর ওই অজাত বন্ধু টার একটা ব্যবস্থা করে দে না বাবা! রাকা সরলার দিকে চেয়ে বলল চিন্তা কোর না ওর ও ভাল কিছু হবে।
ওরা দুজনায় বেড়িয়ে গেল আড্ডা মারতে। যাবার আগে রানি কে বেশ কিছু ভাল খেলনা দিয়ে গেছে রাকা। দুটো ভিডিও গেম কিনেছে বোনের জন্যে। রানি তাই নিয়ে খুশী। সরলা ঠিক পাশের বাড়িতেই থাকে। সরলার ও স্বামী মারা গেছে। কিন্তু ওর বর বড়লোক ছিল। ব্যাবসা ছিল তাই বড় বাড়ি টা ভাড়া দিয়ে ওদের চলে যাচ্ছে। এই মফঃস্বল এ ভাল ভাড়া না পাওয়া গেলেও দুই মা ব্যাটার চলে যায় ভালই।একটা মেয়ে আছে সরলার। এখন রানির সাথেই পড়ে। এক ই ক্লাসে। সরলা একটু মোটা। কোমর অব্দি কোঁকড়া চুল এর গোছা। একটু গ্রাম্য আলুথালু। যূথী একটু স্মার্ট। স্লিম। নিজেকে সাজাতে জানে। বিধবা হওয়া সত্বেও নিজেকে খুব সুন্দর করে বাইরে উপস্থাপনা করতে পারে। যেটা সরলা পারে না। চোখে অনেক পাওয়ার সত্বেও চশমা যূথী কে একটা সুন্দর ব্যাক্তিত্ব দিয়েছে। পিসি ভাইজি তে সব রকমের কথাই হয়। ওরা নামেই পিসি ভাইজি। কিন্তু এক ই বয়সের। যূথীর বাবার মামাতো বোন হল সরলা।

Great
______________________________
దబిడి దిబిడే

Reply With Quote
  #4  
Old 18th September 2015
smohan1980 smohan1980 is offline
 
Join Date: 28th September 2013
Posts: 243
Rep Power: 10 Points: 658
smohan1980 has received several accoladessmohan1980 has received several accoladessmohan1980 has received several accolades
apporva! chaliye zan, sathe acchi

Reply With Quote
  #5  
Old 18th September 2015
rajdip123's Avatar
rajdip123 rajdip123 is offline
 
Join Date: 18th March 2012
Posts: 970
Rep Power: 15 Points: 1717
rajdip123 is a pillar of our communityrajdip123 is a pillar of our communityrajdip123 is a pillar of our communityrajdip123 is a pillar of our communityrajdip123 is a pillar of our communityrajdip123 is a pillar of our communityrajdip123 is a pillar of our communityrajdip123 is a pillar of our community
khub sundor suruta....golpota boro howar moto moshla ache...tobe bhalo treatment chai

Reply With Quote
  #6  
Old 18th September 2015
_Ok_'s Avatar
_Ok_ _Ok_ is offline
 
Join Date: 28th March 2015
Location: In My HoMe
Posts: 617
Rep Power: 7 Points: 1183
_Ok_ has received several accolades_Ok_ has received several accolades_Ok_ has received several accolades_Ok_ has received several accolades_Ok_ has received several accolades
Send a message via AIM to _Ok_
খুব সুন্দর
______________________________
It's Ok

Reply With Quote
  #7  
Old 18th September 2015
razrin razrin is offline
 
Join Date: 24th June 2011
Location: Dhaka
Posts: 644
Rep Power: 15 Points: 856
razrin has received several accoladesrazrin has received several accoladesrazrin has received several accoladesrazrin has received several accolades
something different but story tripti'r TRIPTY
______________________________

Reply With Quote
  #8  
Old 18th September 2015
srk_999 srk_999 is offline
 
Join Date: 15th November 2014
Posts: 304
Rep Power: 7 Points: 508
srk_999 has many secret admirerssrk_999 has many secret admirers
Plz updatecdin

Reply With Quote
  #9  
Old 19th September 2015
scaredcat's Avatar
scaredcat scaredcat is online now
Life is for living,so live it
 
Join Date: 23rd January 2015
Location: Still Searching.....
Posts: 7,797
Rep Power: 17 Points: 6115
scaredcat has celebrities hunting for his/her autographscaredcat has celebrities hunting for his/her autographscaredcat has celebrities hunting for his/her autograph
update
______________________________
I'm just a regular person who believes life is simple, and I like a simple life.

Reply With Quote
  #10  
Old 19th September 2015
chndnds chndnds is offline
Custom title
 
Join Date: 18th May 2011
Posts: 2,829
Rep Power: 21 Points: 4296
chndnds is hunted by the papparazichndnds is hunted by the papparazichndnds is hunted by the papparazi
UL: 186.83 mb DL: 448.00 mb Ratio: 0.42
valo laglo

Reply With Quote
Reply Free Video Chat with Indian Girls


Thread Tools Search this Thread
Search this Thread:

Advanced Search

Posting Rules
You may not post new threads
You may not post replies
You may not post attachments
You may not edit your posts

vB code is On
Smilies are On
[IMG] code is On
HTML code is Off
Forum Jump


All times are GMT +5.5. The time now is 11:29 AM.
Page generated in 0.02113 seconds